Space For Advertisement

খিলগাঁও মডেল কলেজ ছাত্রলীগের কমিটিতে মাদকসেবী ও বিবাহিত

খিলগাঁও মডেল কলেজ ছাত্রলীগের কমিটিতে মাদকসেবী ও বিবাহিত

ঢাকা, সোমবার, ২৭ নভেম্বর ২০১৭ (ফজলুল হক বাবু) : খিলগাঁও মডেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটিতে মাদকসেবী, বিবাহিত ও অছাত্রদের স্থান দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। গত ৫ নভেম্বর বদরুল আমিন রনিকে আহ্বায়ক করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট এই আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার সভাপতি বায়জিদ আহমেদ খান এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদের স্বাক্ষর করা কমিটিতে ৬ জনকে যুগ্ম আহ্বায়ক এবং ৪ জনকে সদস্য করা হয়েছে। ৩ মাসের জন্য গঠিত কমিটিতে ৬ জন যুগ্ম আহ্বায়ক হলেন-আজগর হোসেন মিরাজ, শরিফুল ইসলাম শরীফ, মোহাম্মদ শাকিল আহমেদ, মেহেদী হাসান, মোহাম্মদ মাজহারুল তনয় ও প্রিন্স তালুকদার। কিমিটির সদস্যরা হলেন মোহাম্মদ রাকিব, কাওসার আলম, মতিউর রহমান সজিব ও মাশরুখ আহমেদ। ঘোষিত কমিটির আহ্বায়ক রনির বিরুদ্ধে মাদক সেবনের অভিযোগ রয়েছে। রনি মাদক সেবন করছেন এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার হয়েছে। এছাড়াও কমিটির আরো কমপক্ষে তিনজনের বিরুদ্ধে রয়েছে সংগঠনের গঠনতন্ত্র বিরোধী কর্মকান্ডের অভিযোগ। তাদের কেউ বিবাহিত ও সন্তানের জনক এবং কেউবা অছাত্র। যুগ্ম আহ্বায়ক আজগর হোসেন মিরাজ অছাত্র, সে বর্তমানে কলেজের ছাত্র নয়। যুগ্ম আহ্বায়ক মোহাম্মদ মাজহারুল তনয়কে খিলগাঁও মডেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ কর্তৃপক্ষ বহিষ্কার করেছে, সে বহিষ্কৃত ছাত্র। যুগ্ম আহ্বায়ক শরিফুল ইসলাম শরীফ ১ সন্তানের জনক। তার সন্তানের জন্মদিনের ছবিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে রয়েছে। খিলগাঁও মডেল কলেজের ছাত্র নেতার দাবি-শরীফ গত ১৪ মার্চ ২০১৫ তারিখে খিলগাঁও কাজী অফিসে বিবাহ রেজিস্ট্রি করার মধ্য দিয়ে তার বিবাহ সম্পন্ন করেছেন। এদিকে ঘোষিত কমিটির প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন খিলগাঁও মডেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। তাদের দাবি-নেশাখোর, বিবাহিত, সন্তানের পিতা এবং অছাত্রদের নিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ খিলগাঁও মডেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখার কমিটি গঠিত হতে পারে না। ছাত্রলীগ একটি ঐতিহ্যবাহী গৌরবময় ছাত্র সংগঠন। এ সংগঠনের কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে এত দৈন্যদশা কেন? খিলগাঁও মডেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে কি ছাত্রলীগ করার মতো ছাত্রের অভাব পড়েছে? ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটি বাতিলের দাবিও জানিয়েছেন তারা। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে ঘোষিত কমিটির আহ্বায়ক বদরুল আমিন রনি বলেন, আমাদের কলেজের কমিটি বেশ কিছুদিন আগে ভাঙা হয়েছিল। ফলে এখানে অনেক প্রার্থী ছিল। প্রায় ১২ জনের মতো। যারা আহ্বায়ক কমিটিতে স্থান পায়নি তাদের একটা অংশই এই মিথ্যা তথ্য ছড়াচ্ছে। তিনি বলেন, যারা ছাত্রলীগ করে ছাত্রলীগের কমিটিতে তো তারাই আসবে নাকি বলেন। ছাত্রদল করে তো ছাত্রলীগের কমিটিতে আসার সুযোগ নেই। এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার সভাপতি বায়জিদ আহমেদ খান বলেন, এ বিষয়ে এখনো কোনো অভিযোগ এবং প্রমাণ আমাদের কাছে আসেনি। অভিযোগ পেলে তা যাচাই করে সতত্যা মিললে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 


সংশ্লিষ্ট আরও খবর

সর্বশেষ খবর

Today's Visitor