Space For Advertisement

উপরে নীল আকাশ নিচে নীল সমুদ্র

উপরে নীল আকাশ নিচে নীল সমুদ্র

ঢাকা, বুধবার, ২৮ নভেম্বর ২০১৮ (ফিচার ডেস্ক) : সেন্টমার্টিনে জাহাজ ভিড়তেই পর্যটকদের চোখে-মুখে আনন্দ ফুটে উঠলো। সবাই যার যার ব্যাগ গুছিয়ে তাড়াহুড়ো করে নামার চেষ্টা করছিল। জাহাজ থেকে নামতেই চোখ জুড়িয়ে গেল বিস্তীর্ণ নীল সমুদ্র দেখে। ঘাটে রাখা মাছ ধরার বিশেষ ধরনের ট্রলারও চোখে পড়ার মতো। এ যেন স্বপ্নের রাজ্য! চারিদিকে নীল সমুদ্র, মাঝখানে ছোট্ট দ্বীপ।

জাহাজ থেকে নেমে ৮-১০ মিনিটি হাঁটলেই সেন্টমার্টিন দ্বীপে পৌঁছা যায়। তবে ঘাটে ভ্যান পাওয়া যায়। ভ্যানে ভাড়া নেয় ৫০-৬০ টাকা। আমরা ঘাটে নেমে হেঁটেই গিয়েছিলাম। এখানে পর্যটকদের রাত কাটানোর জন্য সেখানে বেশ কিছু হোটেল ও রিসোর্ট গড়ে উঠেছে। তবে আমরা সেন্টমার্টিনে রাত কাটানোর পরিকল্পনা না করায় কোনো হোটেলে উঠিনি।

আমাদের সেন্টমার্টিন ভ্রমণের প্যাকেজ অনুযায়ী স্থানীয় একটি হোটেলে আমরা আগেই দুপুরের খাবার সেরে নিলাম। কারণ ৩টার মধ্যে আবার জাহাজ ঘাটে ফিরতে হবে। খাবারের পর একটু বিশ্রাম নিয়ে দুপুর সোয়া ১২টার দিকে গেলাম নীল সমুদ্রের পাড়ে। এখানকার স্বচ্ছ ও পরিষ্কার পানি যে কাউকে কাছে টানবে। উপরে নীল আকাশ আর নীচে বিশাল নীল সমুদ্র। পাশেই সামুদ্রিক প্রবাল। এখানে এসে স্বচ্ছ পানিতে গোসল না করলে যেন জীবনটা অপূর্ণ থেকে যায়! তাই পাড়ে ব্যাগ রেখে আমরা সমুদ্রে নেমে পড়লাম। হারিয়ে গেলাম এক অন্য জগতে, দুনিয়ার সবকিছু যেন ভুলে গেলাম আমরা।

এরই মধ্যে এক বিচ ফটোগ্রাফার কিছু ছবি তুলে দিতে চাইলো। প্রতি ছবি ৫ টাকা চুক্তিতে আমাদের আলাদা আলদা বেশ কিছু ছবি তুললো। এভাবে সমুদ্রস্নানের মধ্যেই দ্রুত সময় পেরিয়ে গেল। তবুও যেন স্বাদ মিটছে না। দুপুর সোয়া ২টার দিকে আমরা সমুদ্র থেকে উঠলাম। তবে নারিকেল জিঞ্জিরাখ্যাত সেন্টমার্টিনে এসে নারিকেল না খেলে যেন অপূর্ণতা থেকে যায়। তাই যাওয়ার পথে ১০০ টাকায় দুটো নারিকেল কিনলাম। নারিকেল খেতে খেতেই আমরা নারিকেল জিঞ্জিরা ছাড়লাম। বিকেল ৩টা বাজার ১০ মিনিট আগেই আমরা জাহাজে গিয়ে পৌঁছলাম। জাহাজ ঠিক ৩টায় টেকনাফের উদ্দেশে ছাড়লো। তবে সেন্টমার্টিনে রাত না কাটানোর আফসোস রয়ে গেল।

সেন্টমার্টিন থেকে ফেরার সময় মাঝপথে এসে মন জুড়ালো সামুদ্রিক পাখির কলতানে। জাহাজের পিছে ছুটে চলছিল এক ঝাঁক মনোমুগ্ধকর পাখি। পর্যটকরা বিস্কুট-চিপস ইত্যাদি ছুঁড়ে মারছিল পাখিদের উদ্দেশে। পাখিরাও সেসব ধরে ধরে খাচ্ছিল। প্রায় হাতের নাগালে চলে আসছিল কয়েকটি পাখি। সামুদ্রিক এসব পাখির সঙ্গে রোমাঞ্চকর সময় কাটাতে কাটাতেই আমরা বিকেল সোয়া ৫টার দিকে টেকনাফ পৌঁছলাম।

সন্ধ্যা ৬টার দিকে আমাদের বাস ছাড়লো কক্সবাজারের উদ্দেশে। পথে সেনাবাহিনী ও বিজিবির কয়েকটি চেকপোস্ট। সেগুলো পেরিয়ে রাত সাড়ে ৯টার দিকে আমরা কক্সবাজার পৌঁছলাম। পরে ফ্রেশ হয়ে হোটেলের পাশেই একটি রেস্তোরাঁয় কয়েক পদের ভর্তা, লইট্যা ফ্রাই ও লইট্যা শুঁটকি ভুনা দিয়ে ডিনার সারলাম। এরপর হোটেলে ফিরেই শান্তির ঘুম।

পরদিন সকালে নাস্তা সেরে আমরা চারজন ঘুরতে গেলাম সুগন্ধা বিচ পয়েন্টে। প্রথমদিন রাতে সেখানে যাওয়ায় তেমন কিছু দেখা হয়নি। সুগন্ধা বিচ পয়েন্টের আগেই বার্মিজ মার্কেট। সেখানে পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমারের বিভিন্ন পণ্য পাওয়া যায়। এছাড়াও রাস্তার ডানপাশে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির সামুদ্রিক মাছের শুঁটকির দোকান। সুগন্ধা বিচ পয়েন্টের সঙ্গেই রয়েছে ঝিনুক ও বিভিন্ন ধরনের পণ্যের দোকান। এসব দোকান থেকে সতর্কতার সঙ্গে দেখে-শুনে পণ্য কেনাই বুদ্ধিমানের কাজ। অন্যথায় ঠকার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে।

সুমুদ্র পাড়ে যেতেই আবারও প্রাণ জুড়িয়ে গেল। সমুদ্রের বিশাল বিশাল ঢেউ আছড়ে পড়ছিল পাড়ে। সেই ঢেউয়ের তালে আনন্দে মেতেছিলেন পর্যটকরা। কেউ প্রিয়জনের হাত ধরে, কেউ ওয়াটার বাইকে চড়ে, কেউবা বড় টিউব নিয়ে সমুদ্রস্নানে মেতেছিলেন। আবার কেউ কেউ চেয়ারে বসে আপন মনে সমুদ্র দর্শন করছিলেন। কেউ সমুদ্রের বিশাল ঢেউয়ের সঙ্গে ছবিও তুলছিলেন ভাড়াটে ফটোগ্রাফার দিয়ে।

এখানে ১৫০-২০০ টাকায় ওয়াটার বাইক, টিউব ঘণ্টায় ৪০ টাকা ও চেয়ার ঘণ্টায় ৩০ টাকা ভাড়া পাওয়া যায়। এসব দেখতে দেখতে দুপুর হয়ে এলো। হোটেলে ফিরে আমরা হিমছড়ি ও ইনানি যাওয়ার প্রস্তুতি নিলাম।

দুপুর পৌনে ২টায় ৭০০ টাকায় রিজার্ভ করা ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক নিয়ে আমরা হিমছড়ি-ইনানির উদ্দেশে রওনা দিলাম। সমুদ্রের কোলঘেঁষা মেরিন ড্রাইভ সড়ক দিয়ে যাওয়ার পথে একদিকে সমুদ্র সৈকত অন্যদিকে পাহাড় দেখা যায়। এমন দৃশ্য আর কোথায় মিলবে? পাহাড় আর সমুদ্রের সৌন্দর্য উপভোগ করতে করতেই বিকেল সোয়া ৩টায় আমরা হিমছড়ি পৌঁছলাম।

১০০ টাকায় চার জনের টিকিট নিয়ে প্রায় আড়াইশ’ সিঁড়ি মাড়িয়ে উঠলাম হিমছড়ি পাহাড়ে। হাঁপিয়ে উঠেছিলাম আমরা। তবে ওঠার পর সবুজ পাহাড় আর পাহাড় থেকে সমুদ্রের সৌন্দর্য দেখে সব ক্লান্তি দূর হয়ে গেল। কিছুক্ষণ সেখানে অবস্থান করার পর নিচে নেমে হিমছড়ি ঝরনা দেখেই আমরা ইনানির উদ্দেশে রওনা দিলাম। ইনানি পৌঁছলাম বিকেল সাড়ে ৪টায়। সেখানে নেমেই একটি হোটেলে দুপুরের খাবার খেয়ে নিলাম।

এরপর ইনানি সৈকতের দিকে হাঁটতেই দেখা মিললো লাল কাঁকড়ার। আমাদের দেখতেই দ্রুত বালুর গর্তে ঢুকে পড়ছিল। কাঁকড়া খুঁজতে খুঁজতে আমরা চলে গেলাম সমুদ্র পাড়ে। অবশ্য বন্ধু জাকির একটি লাল কাঁকরা ধরতে সক্ষম হয়েছিল।

ইনানির পাড়ে সন্ধ্যা নেমে এলো। মুহূর্তেই সমুদ্রে মিলে গেল লাল সূর্য। এরই মধ্যে সমুদ্রে জোয়ার আসলো। বড় বড় ঢেউয়ে পানি বাড়তে থাকলো। সন্ধ্যার পরপরই সবাইকে সতর্ক করে নিরাপদ দূরত্বে থাকতে বলা হলো। আমরাও ইনানি ত্যাগ করে সন্ধ্যা ৬টার দিকে কক্সবাজারের উদ্দেশে রওনা দিলাম। কক্সবাজারে নামলাম রাত সাড়ে ৮টার দিকে। নেমেই চলে গেলাম বার্মিজ মাকেটে। সেখান থেকে প্রয়োজনীয় কেনাকাটা শেষ করে রাতের খাবার খেয়ে হোটেলে ফিরলাম রাত ১০টায়।

পরদিন সকালে শ্যামলী পরিবহনের কক্সবাজার-ঢাকা রুটের রাত ৮টার টিকিট কনফার্ম করলাম। এরপর আমরা অটোরিকশা নিয়ে লাবণী বিচ পয়েন্টে গেলাম। সেখানেও পর্যটকদের ভিড়। সমুদ্র পাড় ধরে হাঁটতে হাঁটতে আমরা লাবণী বিচ আর সুগন্ধা বিচের মাঝামাঝি চলে এলাম। সেখানে দুটি চেয়ার ভাড়া করে কিছুক্ষণ বিশ্রামের পর সমুদ্রে নেমে পড়লাম। টিউব ভাড়া নিয়ে ভেসে বেড়ালাম সমুদ্রের ওপর। সেখানে ঘণ্টা দুয়েক হাসি-আড্ডায় অসাধারণ সময় কাটালাম আমরা।

এরপর বিকেলে ফের সমুদ্রের পাড়। সেখানে চেয়ারে হেলান দিয়ে বিকেলের হাওয়া খেতে খেতে কিছুটা তন্দ্রা চলে এসেছিল চোখে। সমুদ্র ছেড়ে মন যেন যেতেই চাচ্ছিল না। কিন্তু উপায় নেই, ছুটি শেষ। রাতেই ঢাকায় ফিরে পরদিন অফিস করতে হবে। তাই সন্ধ্যার পরপরই সমুদ্র সৈকতকে বিদায় জানিয়ে হোটেলে ফিরলাম। সব কিছু গুছিয়ে নিয়ে রাত পৌনে ৮টায় বাস কাউন্টারে গেলাম আমরা। বাস ছাড়লো রাত সোয়া ৮টায়। পাহাড় আর সমুদ্র ফেলে পরদিন সকাল সাড়ে ৯টায় ফিরলাম কংক্রিটের শহরে।


সংশ্লিষ্ট আরও খবর

সর্বশেষ খবর

Today's Visitor