Space For Advertisement

পরিবর্তনের অঙ্গীকার নিয়ে কাউন্সিলর পদে ফরিদ মোল্লা

পরিবর্তনের অঙ্গীকার নিয়ে কাউন্সিলর পদে ফরিদ মোল্লা

রফিকুল ইসলাম কচি : ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের উপনির্বাচন ও সিটি কর্পোরেশন এর সাথে সংযুক্ত নব গঠিত ১৮টি ওয়ার্ড কাউন্সিলর নির্বাচন এখন আলোচনায় চায়ের কাপে ঝড় তুলেছে। মাদক, কাঁচা রাস্তা, দুর্বল স্যানিটেশন, বিশুদ্ধ পানির সংকট, চিকিৎসাহীনতায় জর্জরিত ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নবগঠিত ৩৮ নং ওয়ার্ড। আসন্ন ডিএনসিসির উপ-নির্বাচনে আরো যে ১৮ টি নবগঠিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে তার মধ্যে এই ৩৮ নং ওয়ার্ড অন্যতম। তেজগাঁ সার্কেলের বাড্ডা মৌজার অন্তর্গত মধ্যবাডডা মোল্লাপাড়া, আদর্শনগর, উত্তর বাড্ডা পূর্ব পাড়া (আংশিক) স্মৃতি ভোলা মৌজার উত্তর বাড্ডা ময়নারটেক, বাড্ডা মৌজার উত্তর বাড্ডা আব্দুল্লাহবাগ, মিছরীটোলা ও হাজীপাড়া নিয়ে গঠিত এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। নির্বাচনের হালচাল নিয়ে রিপোর্ট তৈরিতে উঠে এল ৩৮নং ওয়ার্ড ঢাকা সিটি কর্পোরেশন উত্তর। ৩৮নং ওয়ার্ড নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে মাঠে আছেন ফরিদ মোল্লা। ৩৮নং ওয়ার্ড একটি অবহেলিত জনপদ হিসেবে পরিচিত। ইউনিয়ন ও সিটি কর্পোরেশন নিয়ে বহুদিন মামলা চলে আসছিল বিধায় এ অঞ্চলের স্থায়ী ও অস্থায়ী বাসিন্দা দীর্ঘদিন যাবত অবহেলিত ছিল।  উক্ত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ফরিদ  মোল্লা সাথে কথা হলে তিনি জানান আমি ১৯৭০ সাল থেকে আমার স্বপ্নের পুরুষ আমার আদর্শ স্বাধীন বাংলাদেশের মহানায়ক বঙ্গবন্ধুর ডাকে ১০ বছর বয়সে মিছিল মিটিং এ যোগদান করি তারপর থেকে আমি আমার একমাত্র আদর্শ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগে সক্রিয় কর্মী হিসেবে কাজ শুরু করি। লেখাপড়া শেষ না করে ১৯৮২ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী যুব লীগে যোগদান করি। এরিমধ্যে বাড্ডা এরশাদ বিরোধী ও একোয়ার মুক্ত আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে কাজ করি। ১৯৯১ সালে ২১নং ওয়ার্ড আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করি এবং ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত উক্ত পদে বহাল থাকি।তারি সাথে ১৯৯৫ সালে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের জনশক্তি ও কর্মসংস্থান সম্পাদক পদে অধিষ্ঠিত হয়ে ২০০১ সাল পর্যন্ত বহাল থাকি। বর্তমানে আমি মানবতার মা উন্নয়নের মানস কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের হাতকে শক্তিশালী ও আমি যার ভালোবাসায় যার অনুপ্রেরণায় যার শক্তিতে নিজেকে খুঁজে পাই, যার নেতৃত্ব ছাড়া আমি তথা বাড্ডাবাসি অসহায় তিনি আর কেউ নন বর্তমান সরকারের ৫ বারের এমপি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তর এর সম্মানিত সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহর হাতকে শক্তিশালী করতে তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে নগণ্য এক কর্মী হিসেবে বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের সাথে কাজ করে যাচ্ছি। এ কে এম রহমতুল্লাহর আমার অভিভাবক আমার গাইডলাইন আমার আদর্শ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং এমপি মহোদয়ের আদর্শ বাস্তবায়নে আমি সর্বদা সচেষ্ট থাকব বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের সাথে। তাকে প্রশ্ন করি আপনি কাউন্সিল হলে উক্ত ওয়ার্ডের কি কি সমস্যা আছে বলে মনে করেন এবং কি কি উন্নয়ন সাধন করবেন, উত্তরে তিনি জানান ডিজিটাল বাংলাদেশ একসময় আমাদের স্বপ্ন ছিল আজ বাস্তব। আমার নেত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার সৈনিক হিসেবে আমি কথা দিচ্ছি ৩৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হলে এই ওয়ার্ড কে আমি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মডেল ওয়ার্ডে এ রূপান্তরিত করবো ।এটাই আমার জীবনের সর্বশেষ ও শ্রেষ্ঠ কাজের একমাত্র প্রতিজ্ঞা। আমাদের এই ওয়ার্ডের অনেক সমস্যার মধ্যে গ্যাসের প্রেসার কম আর এই গ্যাস সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা নিজ উদ্যোগে নিজ অর্থায়নে গত ছয় মাস যাবৎ কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি এই সমস্যা ও সমাধান হয়ে যাবে। ৩৮নং ওয়ার্ডের বসবাসকারী এলাকাবাসী দীর্ঘদিন চলাচলের উপযোগী রাস্তার উন্নয়ন সাধন করা হবে তার সাথে গরীব অসহায় মানুষদের জন্য আমি বিনামূল্যে থাকার উপযোগী বাসস্থান করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন করার জন্য পরিকল্পনা করছে আমার প্রতিষ্ঠিত আল ইসলাম সমাজকল্যাণ সংস্থা। সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যের  কথা চিন্তা করে প্রতি সপ্তাহে দুই দিন বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নিরাপত্তার স্বার্থে প্রতিটি রাস্তায় সিসি ক্যামেরা ও নাইট গার্ড নিয়োগ দেওয়া হবে। গরীব ও অসহায় মৃত ব্যক্তিদের সৎকারসহ বিনামূল্যে মৃত ব্যক্তির লাশ বাড়িতে পাঠানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। গরীব এতিম বাচ্চাদের ও বয়স্কদের জন্য অবৈতনিক শিক্ষা ব্যবস্থা ও নাইট স্কুল চালু করা হবে। মাদকের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন কর্মসংস্থানের অভাবে যুব সমাজ আজ এই অন্ধকার পথ বেছে নিয়েছে, তার কর্মসংস্থানসহ আমি নিজ খরচে একটি মাদক নিরাময় কেন্দ্র করে দিয়েছি যা দীর্ঘদিন ধরে অসংখ্য যুবককে তাদের নতুন জীবন দান করেছে। তিনি আরো জানান ,এলাকাবাসীর উন্নত নাগরিক জীবন যাপনের জন্য ময়লা আবর্জনা অপসারণ, রাস্তা পরিষ্কারসহ পানি নিষ্কাশন, মশার উপদ্রব নিরোষণ, রাস্তায় এলইডি লাইট প্রতিস্থাপন, খেলার মাঠ, কমিউনিটি সেন্টার সহ ধর্মীয় মূল্যবোধের প্রতি আমি সর্বদা সচেষ্ট থাকার চেষ্টা করব। সকল ধর্মীয় মানুষ নির্দ্বিধায় তাদের নিজ নিজ ধর্মীয় কাজে আমাকে সর্বদায় কাছে পাবে। ৩৮নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সোহাগ আহমেদ সাবেক গুলশান থানা ভাইস প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বাদল মোল্লা সহ সাধারন জনগন জানায় ফরিদ মোল্লা একজন জনদরদি মানুষ তার নেতৃত্বে আজ আমরা গর্বিত। সাধারণ মানুষের সুখে দুঃখের সাথী এই ফরিদ মোল্লা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির সদস্য নারায়ণ দেবনাথ বলেন, দলের জন্য তিনি যেমন সততা এবং নিষ্ঠার সাথে কাজ করেন সাধারণ মানুষের জন্য হয়ে উঠতে পারেন পরিবর্তনের এক দৃষ্টান্ত। মসজিদের ইমাম মাদ্রাসা ছাত্র ছাত্রী গার্মেন্টস কর্মী দিনমজুর দোকানদার ও ব্যবসায়ীসহ অনেকে বলেন ফরিদ মোল্লা আমাদের ভালবাসার নাম আস্থার  নাম বিশ্বাস এর নাম তাই কাউন্সিলর হিসেবে ৩৮নং ওয়ার্ডে আমরা তাকে দেখতে চাই।


সংশ্লিষ্ট আরও খবর

সর্বশেষ খবর

Today's Visitor