রবিবার, ২০শে জুলাই, ২০১৯ ইং

দুর্গাপুরের মাধবটিলায় বসতবাড়ীর ৪ ঘরই পুড়িয়ে ছাই করেদিল দূর্বত্তরা

মুক্তখবর :
এপ্রিল ১৫, ২০১৯
news-image

কলিহাসান,দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)প্রতিনিধি : জেলার দুর্গাপুর উপজেলার কুল্লাগড়া ইউনিয়নের মাধবপুর গ্রামে বৃহস্পতিবার রাত ২টার পর কোন এক সময়ে দূর্বত্তরা আগুনে পুড়িয়েদিল একটি বসতবাড়ীর ৪টি ঘর। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করেছে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার।
ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার ও মামলা সূত্রে জানাযায় প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার রাতে খাওয়া-দাওয়ার পর বাড়ীতে থাকা ২জন মহিলা ও একটি শিশু বাচ্ছাকে নিয়ে তাঁরা ঘুমিয়ে পড়েন। অনুমান রাত ৩টার দিকে হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গেযায় রফিকুল এর স্ত্রী নার্গিস বেগমের,তৎক্ষনাত দেখেন বাড়ীর চতুর্দিকে সবগুলি ঘরে একযোগে আগুন জ¦লছে। সে তার শ্বাশুরী ফুলেমা খাতুন ও শিশু বাচ্ছা সাকিবুলকে নিয়ে প্রান বাঁচানোর জন্য দৌড়াইয়া ঘরথেকে বাহির হইয়া চিৎকার শুরু করেণ।এই গভীর রাতে কিছু সংখ্যক লোকজন ঘটনাস্থলে আসলেও কোন কিছুই রক্ষা করতে পারেননি তারা,এতক্ষনে বাড়ীর দুইটি বশতঘর একটি রান্না ও গোয়াল ঘর পুড়েছাই হয়েগেছে। আগুনের প্রচন্ড তাপে গোয়ালঘরে থাকা গরুগুলি দিকবেদিক ছুটাছটি করে প্রানে বেঁচে যায়। এতেপ্রায় ৫/৬লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার। পরিবারের লোজন জানান ঘটনার দুইদিন আগে প্রতিবেশী খালেক, মজিব, হাসেন ক্ষতিগ্রস্থ বাড়ীওয়ালাদের সাথে ঝগড়া করে। ঝগড়ার পরের দিন বাড়ীতে এসে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান খালেক প্রকাশ্যে হুমকী দিয়ে যায় “তোদের বাড়ীর একটি টিনের পাতাও রাখবনা”। ওইদিন মাঝরাতেই বাড়ীতে আগুন ধরিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। তারা আসলে কারা এমন প্রশ্ন এলাকাবাসীর ? তারা আরো জানান যে, যারা হুমকী দিয়েছে এদের দ্বারাই এ আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটতে পারে বলে সন্ধেহপোষন করছেন তারা। অফিসার ইন-চার্জ মোঃ মিজানুর রহমান বলেন অগ্নিকান্ডের খবর পেয়ে আমি নিজেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি বিষয়টি খুুবই মর্মান্তিক এ বিষয়ে অজ্ঞাতনামা একটি মামলা হয়েছে,যার নং-১১।