শনিবার, ২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

অতিরিক্ত আমদানিতে কমেছে ভোগপণ্যের দাম

মুক্তখবর :
মে ১৫, ২০১৯
news-image

ঢাকা, বুধবার, ১৫ মে ২০১৯ (স্টাফ রিপোর্টার) : চাহিদার তুলনায় অতিরিক্ত আমদানির পাশাপাশি হঠাৎ করে বিক্রি কমে যাওয়ায় পাইকারি পর্যায়ে সব ধরণের ভোগ্য পণ্যের দাম কমেছে। রমজান শুরু হওয়ার পর গত কয়েকদিনে ভোজ্য তেল, চিনি, ছোলার মতো ভোগ্যপণ্য কেজিতে ৫০ পয়সা থেকে দু’ টাকা পর্যন্ত কমেছে। তবে বাজারে ভালো মানের রসুনের ঘাটতির কারণে কেজি প্রতি রসুনের দাম বেড়েছে ৮ থেকে ১০ টাকা। রমজান শুরুর প্রথম সপ্তাহে এসে পাইকারি পর্যায়ে ছোলা বিক্রির পরিমাণ অর্ধেকে নেমে এসেছে। ফলে প্রতি কেজি ছোলার দাম কমেছে অন্তত দু’টাকা। মেসার্স সালমা ট্রেডার্সের ম্যানেজার জুয়েল মহাজন বলেন, নিম্নমানের ছোলা ৬৫ টাকা ছিলো, এই মাসে সেটা ৬৩ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এটার এফেক্ট আস্তে আস্তে খুচরা বাজারেও পড়বে।

ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটের সাথে সঙ্গতি রেখে দেশের বাজারেও কমেছে সব ধরণের ভোজ্য তেলের দাম। এছাড়া তীব্র গরমে কারণে এর চাহিদাও কমেছে।

এ সপ্তাহে মণ প্রতি চিনির দাম কমেছে ১৫ টাকা। পাইকারি পর্যায়ে প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৪৭ টাকায়। মেসার্স সবুজ বাণিজ্যালয়ের মালিক শাহেদ উল আলম বলেন, খুচরা বাজারে মনিটরিং এর অভাবে হয়ত দাম কমছে না। কিন্তু বাজার নিম্নগামী। সংকটের মুখে পড়ে রসুনের অস্থিরতা দিন দিন বাড়ছে। তবে পেঁয়াজ ও আদার দাম কিছুটা কমেছে। রমজান শুরু’র এক সপ্তাহ আগে প্রতিদিন খাতুনগঞ্জে সর্বোচ্চ ৭০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি হলেও এখন ৬০০ কোটি টাকার নিচে নেমে এসেছে।
সূত্র : সময় সংবাদ