শনিবার, ২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

দেশের জার্সিতে ফের ব্যর্থ মেসি

মুক্তখবর :
জুন ১৬, ২০১৯
news-image

ঢাকা, রোববার, ১৬ জুন ২০১৯ (স্পোর্টস ডেস্ক): কোপা আমেরিকার আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে কলম্বিয়ার কাছে ২-০ গোলে হেরে গেছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। আর এতে করে পরাজয় দিয়েই কোপা আমেরিকার মিশন শুরু করলো আর্জেন্টিনা। যদিও শুরু থেকেই দুই দলের খেলা ছিল ছন্দহীন, আক্রমণগুলো ধারহীন। আর্জেন্টিনার মিডফিল্ডাররা পারেননি আক্রমণভাগের সঙ্গে সমন্বয় গড়ে তুলতে। বল পেতে অনেক নিচে নেমে খেলতে হয়েছে লিওনেল মেসিকে। পাস দেওয়ার পর সতীর্থের কাছ থেকে অধিনায়ক বল ফিরে পেয়েছেন কমই। তবুও ব্যর্থতার জন্য সমালোচনায় বিদ্ধ হতে হচ্ছে তাকেই। ‘দেশের জার্সি গায়ে মাঠে নামলে সেই চেনা মেসিকে খুঁজে পাওয়া যায় না’ অভিযোগটি আবারও ফিরে এসেছে।

সমালোচনাকারীরা বলছেন, দেশের জার্সি গায়ে মাঠে নামলে সেই চেনা লিওনেল মেসিকে খুঁজে পাওয়া যায় না। ক্লাবের হয়ে যতটা সফল তিনি, ততটাই ব্যর্থ জাতীয় দলে। আর্জেন্টাইন সুপারস্টারের এ বদনাম অনেক দিনই আছে। আর দুর্ভাগ্যবশত এবারের কোপা আমেরিকা অভিযান শুরু করেও সে বদনাম ঘোচাতে পারলেন না এলএম টেন। ফলে হারের পরই নেটিজেনদের রোষের মুখে পড়েছেন মেসি।
ব্রাজিলে নেইমার নেই। কিন্তু আর্জেন্টিনায় মেসি তো আছেন। তাছাড়া গত দুটি কোপাতে দলকে ফাইনালে পৌঁছে দিয়েও ট্রফি এনে জিতে পারেননি বার্সা ফরোয়ার্ড। তাই এবার কোপা চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আশায় বুক বেধেছিলেন মেসি তথা আর্জেন্টিনার সমর্থকরা। কিন্তু শুরুতেই ধাক্কা। জাতীয় দলে ব্যর্থতার ভূত যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না মেসির। রবিবারও কলম্বিয়ার কাছে খানিকটা অপ্রত্যাশিতভাবেই হারলেন তারা।

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে সেটপিস পজিশন থেকে একাধিকবার গোল করার সুযোগ তৈরি করেও ব্যর্থ আর্জেন্টিনা। মেসির হেডার অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে বেরিয়ে যায়। আরও একটি নিশ্চিত গোল আটকে দেন কলম্বিয়ার গোলকিপার। তারপরই ঘুরে দাঁড়ায় কলম্বিয়া। আলবেসেলেস্তার আক্রমণের সামনে দুটি দর্শনীয় গোলে দলের জয় নিশ্চিত করে ফেলেন রজার মার্টিনেজ এবং ডুভান জাপাটা।

আর্জেন্টিনার হারের পরই সোশ্যাল মিডিয়ায় মেসির মুণ্ডপাত করতে শুরু করেন নেটিজেনরা। দেশের হয়ে মেসির সাফল্য নিয়ে ফের প্রশ্ন তুলেন অনেকেই। এমনকি আরও একবার তার সঙ্গে তুলনা টানা হয় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। সম্প্রতি অধিনায়ক হিসেবে পর্তুগালকে নেশনস লিগ চ্যাম্পিয়ন করেছেন সিআর সেভেন। সেখানে কোপার প্রথম ম্যাচেই হার আর্জেন্টিনার। তাই পরের ম্যাচে ঘুড়ে দাঁড়াতে না পারলে, মেসিকে যে আরও বেশি বাক্যবাণে বিদ্ধ হতে হবে, তা বলাই বাহুল্য।দের প্রথম ম্যাচে কলম্বিয়ার কাছে ২-০ গোলে হেরে গেছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। আর এতে করে পরাজয় দিয়েই কোপা আমেরিকার মিশন শুরু করলো আর্জেন্টিনা।

যদিও শুরু থেকেই দুই দলের খেলা ছিল ছন্দহীন, আক্রমণগুলো ধারহীন। আর্জেন্টিনার মিডফিল্ডাররা পারেননি আক্রমণভাগের সঙ্গে সমন্বয় গড়ে তুলতে। বল পেতে অনেক নিচে নেমে খেলতে হয়েছে লিওনেল মেসিকে। পাস দেওয়ার পর সতীর্থের কাছ থেকে অধিনায়ক বল ফিরে পেয়েছেন কমই। তবুও ব্যর্থতার জন্য সমালোচনায় বিদ্ধ হতে হচ্ছে তাকেই। ‘দেশের জার্সি গায়ে মাঠে নামলে সেই চেনা মেসিকে খুঁজে পাওয়া যায় না’ অভিযোগটি আবারও ফিরে এসেছে।

সমালোচনাকারীরা বলছেন, দেশের জার্সি গায়ে মাঠে নামলে সেই চেনা লিওনেল মেসিকে খুঁজে পাওয়া যায় না। ক্লাবের হয়ে যতটা সফল তিনি, ততটাই ব্যর্থ জাতীয় দলে। আর্জেন্টাইন সুপারস্টারের এ বদনাম অনেক দিনই আছে। আর দুর্ভাগ্যবশত এবারের কোপা আমেরিকা অভিযান শুরু করেও সে বদনাম ঘোচাতে পারলেন না এলএম টেন। ফলে হারের পরই নেটিজেনদের রোষের মুখে পড়েছেন মেসি।
ব্রাজিলে নেইমার নেই। কিন্তু আর্জেন্টিনায় মেসি তো আছেন। তাছাড়া গত দুটি কোপাতে দলকে ফাইনালে পৌঁছে দিয়েও ট্রফি এনে জিতে পারেননি বার্সা ফরোয়ার্ড। তাই এবার কোপা চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আশায় বুক বেধেছিলেন মেসি তথা আর্জেন্টিনার সমর্থকরা। কিন্তু শুরুতেই ধাক্কা। জাতীয় দলে ব্যর্থতার ভূত যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না মেসির। রবিবারও কলম্বিয়ার কাছে খানিকটা অপ্রত্যাশিতভাবেই হারলেন তারা।

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে সেটপিস পজিশন থেকে একাধিকবার গোল করার সুযোগ তৈরি করেও ব্যর্থ আর্জেন্টিনা। মেসির হেডার অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে বেরিয়ে যায়। আরও একটি নিশ্চিত গোল আটকে দেন কলম্বিয়ার গোলকিপার। তারপরই ঘুরে দাঁড়ায় কলম্বিয়া। আলবেসেলেস্তার আক্রমণের সামনে দুটি দর্শনীয় গোলে দলের জয় নিশ্চিত করে ফেলেন রজার মার্টিনেজ এবং ডুভান জাপাটা।

আর্জেন্টিনার হারের পরই সোশ্যাল মিডিয়ায় মেসির মুণ্ডপাত করতে শুরু করেন নেটিজেনরা। দেশের হয়ে মেসির সাফল্য নিয়ে ফের প্রশ্ন তুলেন অনেকেই। এমনকি আরও একবার তার সঙ্গে তুলনা টানা হয় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। সম্প্রতি অধিনায়ক হিসেবে পর্তুগালকে নেশনস লিগ চ্যাম্পিয়ন করেছেন সিআর সেভেন। সেখানে কোপার প্রথম ম্যাচেই হার আর্জেন্টিনার। তাই পরের ম্যাচে ঘুড়ে দাঁড়াতে না পারলে, মেসিকে যে আরও বেশি বাক্যবাণে বিদ্ধ হতে হবে, তা বলাই বাহুল্য।