সোমবার, ১৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

চুয়াডাঙ্গায় বিরোধের জেরে কৃষককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

মুক্তখবর :
জুন ২০, ২০১৯
news-image

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯ (নিজস্ব প্রতিনিধি): চুয়াডাঙ্গায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে হেদায়েত মন্ডল (৪৮) নামে এক কৃষককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। বুধবার দিবাগত রাতে হামলা চালিয়ে তাকে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ নিহতের পরিবারের। এ ঘটনার পর ওই গ্রামে দুইপক্ষের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। নিহত হেদায়েত মন্ডল সদর উপজেলার হাসনহাটি গ্রামের মৃত পুটে মন্ডলের ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার হাসনহাটি গ্রামে একটি ইটভাটা নির্মাণকে কেন্দ্র করে ওই গ্রামের হেদায়েত মন্ডল ও কাদের আলীর মধ্যে বেশ কিছুদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এই বিরোধের জের ধরে বুধবার রাতে হেদায়েত মন্ডলের ছেলে আক্তারের সঙ্গে কাদের আলীর ভাগ্নে শাহীনের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে দুপক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়েন হেদায়েত মন্ডল। তাকে দ্রুত উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জাকির হোসেন তাকে মৃত ঘোষণা করেন।  ঘটনার বর্ণনা দিয়ে প্রত্যক্ষদর্শী মামুন জানান, বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ৯টার দিকে হেদায়েত মন্ডলের ছেলে আক্তার মোটরসাইকেল নিয়ে গ্রামের তিন রাস্তার মোড়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় পাশ দিয়ে ট্রাক্টর নিয়ে যাচ্ছিলেন কাদের আলীর ভাগ্নে শাহীন। এক পর্যায়ে ট্রাক্টরের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগলে আক্তার ক্ষিপ্ত হয়ে শাহীনকে চড় থাপ্পড় মারেন। এরপর এ ঘটনাকে নিয়ে দুই পরিবার জড়িয়ে পড়ে সংঘর্ষে। নিহতের ছেলে আক্তারের অভিযোগ, ট্রাক্টর দিয়ে চাপা দিয়ে আমাকে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়েছিলো। এর প্রতিবাদে আমি শাহীনকে থাপ্পড় দিলে সে বাড়িতে গিয়ে তাদের পক্ষের ১০/১২ জনকে নিয়ে আমার ওপর হামলা করে। এ সময় আমার বাবা হেদায়েত মন্ডল তাদের নিবৃত করতে এগিয়ে এলে তাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। পরে স্থানীয়রা হেদায়েত আলী মন্ডলকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ মো. ফকরুল আলম খান জানান, ঘটনার পর হাসনহাটি গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। একই সঙ্গে হামলার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে। আজ মরদেহের ময়না তদন্ত করা হবে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।