শনিবার, ২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

শ্রীপুরে সরকারী ৩০ পুকুর মাছ চাষের আওতায় নেই

মুক্তখবর :
জুলাই ১৭, ২০১৯
news-image

শ্রীপুর(গজীপুর)প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুরে সরকারী ২০৩টি পুকুরের মধ্যে ১৭০টি পুকুর বা দিঘীতে মাছ চাষ হচ্ছে। বাকিগুলো সংষ্কারের অভাব, শুষ্ক মৌসুমে পানি না থাকা ও ভরাট হয়ে যাওয়ায় মাছ চাষের আওতায় আসেনি।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের ক্ষণিকা সভাকক্ষে মৎস্য বিভাগের আয়োজনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

শ্রীপুর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. আশরাফুল্লাহ ও সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা বদিউজ্জামান তথ্যটি নিশ্চিত করে জানান, এ উপজেলায় বেসরকারী পর্যায়ে ৪ হাজার ১৫৬টি পুকুর বা দিঘী রয়েছে, যেগুলো মাছ চাষের আওতায় রয়েছে। সরকারী পুকুর বা দিঘী রয়েছে ২০৩টি। এর মধ্যে ১৭০টির বেশি পুকুর বা দিঘী মাছ চাষের আওতায় রয়েছে। বাকিগুলো সংষ্কারের অভাব, শুষ্ক মৌসুমে পানি না থাকা এবং ভরাটের কারণে মাছ চাষের আওতায় আসেনি। তাছাড়া উপজেলায় বিলের সংখ্যা ১৪৫টি, খালের সংখ্যা ৪টি এবং বেশিরভাগ বিল এখন প্লাবন ভূমিতে পরিণত হয়েছে।

তারপরও উৎপাদন ক্রমাগতভাবে বাড়ছে বলে জানান কর্মকর্তারা। উপজেলায় নিরাপদ মৎস্য উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে উল্লেখ করে তারা জানান, উপজেলায় মোট মাছ চাষীর সংখ্যা ১হাজার ৬৮৫জন। এর মধ্যে নিবন্ধিত জেলের সংখ্যা ৬’শ ৮ জন। ১৮টি নিবন্ধিত মৎস্যজীবি সমিতি থাকলেও সেগুলো অনেকটাই অকার্যকর।

শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শামসুল আলম প্রধান মুঠোফোনে সাংবাদিকদের বলেন, ইতোমধ্যে উন্নয়ন সমন্বয় সভায় এসব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সংষ্কারহীন পুকুর বা দিঘীগুলো সংষ্কার করে মাছ চাষের আওতায় আনা হবে। যেগুলো ভরাট হয়েছে সেগুলো উদ্ধারের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

শ্রীপুর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. আশরাফুল্লাহর সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মো. শামছুল অরেফীন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফাতেমাতুজ্জোহরা, শ্রীপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি প্রভাষক আবু বকর সিদ্দিক আকন্দ, সাধারণ সম্পাদক কাজী আক্তার হোসেন, শ্রীপুর প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি আলমগীর হোসেনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।