সোমবার, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ডেঙ্গু রোগীর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে হাসপাতালের বেড সংকট

মুক্তখবর :
জুলাই ৩০, ২০১৯
news-image

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩০ জুলাই ২০১৯ (স্টাফ রিপোর্টার): বাড়ছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা, সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে হাসপাতালের শয্যা সংকট। এমন পরিস্থিতিতে ঝুঁকিপূর্ণ ডেঙ্গু রোগীদের মিলছেনা উপযুক্ত চিকিৎসা। শিশু, বৃদ্ধ, অন্তঃসত্ত্বা নারী, ডায়াবেটিস, কিডনি ও হৃদরোগ জটিলতা থাকা ডেঙ্গু রোগীরা বেশি ঝুঁকিতে থাকায় তাদের হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ চিকিৎসকদের। বাকিদের বাড়িতে থেকে সতর্কতার সঙ্গে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলার কথা বলছেন তারা। ডেঙ্গু রোগীর উপচে পড়া চাপ সামলাতে হিমশিম অবস্থা সরকারি- বেসরকারি সব হাসপাতাল। জ্বর হলেই আতঙ্কে হাসপাতালে ছুটে আসছেন সবাই। ডেঙ্গু নিশ্চিত হবার সঙ্গে সঙ্গে ভর্তি করানোর জন্য ছুটছেন এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে । এরইমধ্যে ডেঙ্গু আক্রান্ত বেশ কয়েকজনের মৃত্যু হওয়ায় ভয় যেন আর ঝাপটে ধরেছে সবাইকে। এমন পরিস্থিতিতে রাজধানীর ছোট-বড় সব হাসপাতালে দেখা দিয়েছে তীব্র শয্যা সংকট, পাওয়া যাচ্ছেনা আইসিইউ। এমন প্রেক্ষাপটে চিকিৎসকরা বলছেন, কোন রোগীদের জন্য হাসপাতালে থেকে চিকিৎসা নেয়া প্রয়োজন তা ভাবার সময় এসেছে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তদের ৩টি ধরণের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন ক্লাসিক্যাল ডেঙ্গুতে। এই সংখ্যা ৭০ থেকে ৮০ ভাগ, যাদের হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন নেই। তবে বাসায় ফিরেও রোগীকে রাখতে হবে পর্যবেক্ষণে। মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এইচ এ এম নাজমুল আহসান বলেন, ‘অন্তনালী থেকে ব্লিডিং হয়, তবে এটা তাজা রক্তের মতো ব্লিডিং হয় না। তবে মেয়েদের ক্ষেত্রে মাসিকের সময় যদি ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়, তাহলে ব্লিডিংয়ের পরিমাণ বেশি হতে পারে। তাই সতর্ক থাকতে হবে।’ ভর্তির ক্ষেত্রে ডেঙ্গু আক্রান্তের বি ও সি ধরণের রোগীদের বেশী গুরুত্ব দেবার পরামর্শ চিকিৎসকদের। পরিস্থিতি আরো জটিল হওয়ার আগেই রোগী ভর্তির ক্ষেত্রে আরো সতর্ক না হলে প্রাণহানি বাড়ার আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।