শুক্রবার, ২১শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলেও দুর্ভোগ কমেনি

মুক্তখবর :
জুলাই ৩১, ২০১৯
news-image

ঢাকা, বুধবার, ৩১ জুলাই ২০১৯ (নিজস্ব প্রতিনিধি) : নদ নদীর পানি কমায় নওগাঁ, কুড়িগ্রাম ও টাঙ্গাইলসহ বন্যা কবলিত বিভিন্ন এলাকা থেকে পানি নেমে গেছে। বন্যার পানিতে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি, ফসলের জমি, মাছের ঘের ও গবাদি পশু খামার। স্যানিটেশন ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় নানা ধরণের পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকে। গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলেও দুর্ভোগ কমেনি বানভাসি মানুষের। টানা কয়েকদিন ডুবে থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর নিয়ে বিপাকে পড়েছেন তারা। এখনো অনেকে আশ্রয় নিয়ে আছেন বাঁধের ওপর। বন্যার পানিতে ব্যাপকভাবে ক্ষতি হয়েছে রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি, ফসলের জমি, মাছের ঘের ও গবাদি পশু খামারের। বন্যার কারণে ভালো নেই নওগাঁ কৃষকরা। কৃষি বিভাগের মতে, মান্দা উপজেলায় দুই হাজার হেক্টর জমিতে রোপণ করা আউশ ধান ও ৭শ হেক্টর বীজতলা সম্পূর্ণ পচে নষ্ট হয়ে গেছে। ভেসে গেছে প্রায় ৫শ পুকুরের মাছ। এক কৃষক বলেন, ‘১০ হাজার টাকার ধানের বিজ রোপণ করেছিলাম, সব নষ্ট হয়ে গেছে।’ কুড়িগ্রামে পানি নেমে যাওয়ায় বাড়িঘরে ফিরতে শুরু করেছেন সকলে। বন্যার কারণে কাজে যেতে না পারায় বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষ। তবে বিশুদ্ধ পানির সংকটে বিভিন্ন চর্ম রোগসহ পানিবাহিত নানা রোগ ছড়িয়ে পড়েছে।এক গৃহবধূ বলেন, ‘বাড়ির মধ্যে পানি ছিল, এখন পানি কমে গেছে,তাই পুরো বাড়ি কাদা হয়ে আছে, এজন্যই আমি শরীরে রোগ ছড়িয়ে পড়ছে।’ শরীয়তপুরে বন্যার কারণে স্যানিটেশন ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় দূষিত হচ্ছে পানি। বিশুদ্ধ পানির সংকটে ডায়রিয়াসহ পানিবাহিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভিড় করছেন রোগীরা। শরীয়তপুর হাসপাতালের এক নার্স বলেন, ‘বন্যার কারণে শরীয়তপুর হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে। এবং সরকারি মেডিসিন রোগীরা পর্যাপ্ত পরিমাণে পাচ্ছেন।’ এছাড়া টাঙ্গাইল, ঝালকাঠি, ও জামালপুরসহ দেশের বিভিন্নস্থানে বন্যার পরিস্থিতির উন্নতি হলেও ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়ায় মাথা তুলে দাঁড়াবার দুশ্চিন্তায় তা