সোমবার, ১৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

রাজধানীতে আজ থেকে শুরু হচ্ছে কোরবানির পশু বেচাকেনা

মুক্তখবর :
আগস্ট ৭, ২০১৯
news-image

ঢাকা, বুধবার, ০৭ আগষ্ট ২০১৯ (স্টাফ রিপোর্টার) : ঈদুল আজহা উপলক্ষে সারাদেশে এ বছর ২ হাজার ৩৬২টি কোরবানি পশুর হাট বসেছে। এর মধ্যে রাজধানীর দুই সিটি কর্পোরেশনে বসেছে ২৪টি হাট।রাজধানীর ২৪টি পশুর হাটে আজ (বুধবার) থেকে শুরু হচ্ছে কোরবানির পশু বেচাকেনা। এসব হাটে পশু বেচাকেনা চলবে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত। যানজটের বিষয়টি মাথায় রেখে এবার রাজধানীর চারপাশে হাট বরাদ্দ দিয়েছে ঢাকা দুই সিটি কর্পোরেশন। দুই সিটি কর্পোরেশনের আওতায় ২৩টি অস্থায়ী ও একটি স্থায়ী পশুরহাট বসেছে। এসব হাটের মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ১০টি এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ১৪টি হাট রয়েছে। রাজধানীর উত্তর সিটি কর্পোরেশনে পশুর হাটগুলো হলো- উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের হাট, খিলক্ষেত বনরূপা হাট, খিলক্ষেত তিনশ ফুট সড়ক সংলঘ্ন উত্তর পাশে, ভাটারা (সাঈদনগর) পশুর হাট, ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট খেলার মাঠ, মোহাম্মদপুর বুদ্ধিজীবী সড়ক সংলগ্ন (বছিলা) পুলিশ লাইনসের খালি জায়গা, মিরপুর সেকশন-৬ (ইস্টার্ন হাউজিং) খালি জায়গা, হাট, মিরপুর ডিওএইচএসের উত্তর পাশের সেতু প্রপার্টি ও উত্তর খান মৈনারটেক শহিদনগর হাউজিংয়ের খালি জায়গা। দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে কোরবানির পশুর হাটগুলো হলো- আমুলিয়া মডেল টাউনের আশপাশের খালি যায়গা, উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজারের মৈত্রী সংঘের মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, ঝিগাতলা-হাজারীবাগ মাঠসংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, লালবাগ রহমতগঞ্জ খেলার মাঠ হাট, কামরাঙ্গীর চর ইসলাম চেয়াম্যান বাড়ি মোড়, পোস্তগোলা শ্মশানঘাট হাট, শ্যামপুর বালুর মাঠসহ আশপাশের খালি জায়গা, মেরাদিয়া বাজার সংলগ্ন আশপাশ এলাকার খালি জায়গা, ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের সামসাবাদ মাঠ সংলগ্ন আশপাশ এলাকার খালি জায়গা, কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন বিশ্বরোডের আশপাশের খালি জায়গা, শনির আখড়া ও দনিয়া মাঠ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, ধূপখোলা ইস্ট অ্যন্ড খেলার মাঠ, ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউয়ারটেক মাঠ সংলগ্ন আশপাশ এলাকার খালি জায়গা ও আফতাবনগর ইস্টার্ন হাউজিং মেরাদিয়া বাজার। হাটের ইজারাদাররা জানান, হাটে গত রোববার থেকেই গরু আসতে শুরু করেছে। বন্যার কারণে ব্যবসায়ীরা এবার একটু আগেই হাটে গরু নিয়ে এসেছেন। তবে হাটে লোকজন (ক্রেতা) কম, এখনো জমে ওঠেনি। ক্রেতারা হাট ঘুরে দেখলেও এখনই তারা কিনছেন না। এদিকে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত স্থানের বাইরে কোনো পশুর হাট বসতে পারবে না বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। তিনি জানান, প্রত্যেক পশুর হাটে পর্যাপ্তসংখ্যক সাদা পোশাকে ও ইউনিফর্মে পুলিশ থাকবে। এছাড়া প্রত্যেক হাটে পুলিশের কন্ট্রোল রুম ও ওয়াচ টাওয়ার থাকবে। পশুর হাটে ও তার আশপাশে দৃশ্যমান স্থানে জনসচেতনতামূলক ব্যানার টানানো ও প্রচার প্রচারণা করতে বলা হয়েছে।