সোমবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

দুর্গাপুর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে জাল দলিল সম্পাদনে ভ্রাম্যমান আদালতের ২ হাজার টাকা জরিমানা

মুক্তখবর :
আগস্ট ৮, ২০১৯
news-image

কলিহাসান, দুর্গাপুর (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি: নেত্রকোনার দুর্গাপুর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লিখক নজরুল ইসলামের কারসাজিতে জাল দলিল জালিয়াতির অভিযোগে ২হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যার পরে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে এ জরিমানা করা হয়। প্রত্যক্ষদর্শী ও সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গাওঁকান্দিয়া ইউনিয়নের জাগিরপাড়া গ্রামের আবু তালেব ২০০৩সালে আটচল্লিশ শতক জমি ক্রয় করে জালিয়াতির মাধ্যমে মালিক বনে যান। ঐ জমির বিষয়টি গ্রাম্য সালিশে বেশ কয়েকবার বসলেও স্থানীয়ভাবে সুরাহা মেলেনি। ওই জাল দলিলের বিষয়টি তদারকী করে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে দলিলের জন্যে নিয়ে আসেন কতিপয় ব্যাক্তি।

ঐ জালিয়াতি দলিলের মোট ভূমির ৪শতাংশ একই গ্রামের সুরুজ মিয়াকে অ্যাওয়াজ করে দেবার জন্যে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে আসেন আবু তালেব। পরে ৫ই আগষ্ট সোমবার সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের আঃ মালেক গ্রহিতাকে দলিল লিখক নজরুল ইসলামের কাছে নিয়ে যান। তিনি মোটা অংকের লোভে জাল দলিল সমপন্ন করার উদ্দেশ্যে রেজিষ্ট্রি এজলাসে জমা দেন। সাব-রেজিষ্ট্রার মূল দলিলটি জাল সনাক্ত করে ঐ দলিলের কার্যক্রম বন্ধ রাখেন। এ বিষয়টি ধামাচাপা দিতে মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে মিটিং বসে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস কক্ষে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) ও নিবার্হী ম্যাজিষ্ট্রেট ফারজানা খানম ওই সময়ে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে জাল দলিল লিখনের দায়ে দলিল লিখক আঃ রশীদ’কে ২হাজার টাকা জরিমানা করেণ। ঐ সময়ে মোবাইল কোর্টের উপস্থিতি টেরপেয়ে দলিল সম্পাদনকারী নজরুল ইসলাম ও আঃ মালেক দৌড়ে পালিয়ে যান বলে জানাযায়।

দলিল লিখক সমিতির সভাপতি আব্বাস ভেন্ডার বলেন,সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে কোন দালাল থাকতে পারবেনা। অপ্রীতিকর পরিবেশের সাথে যারা জড়িত তাঁদেরকে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস থেকে বের করে দেওয়া হবে।

১৯বছর ধরে অবৈধভাবে কাজ করে আসা সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের সরকার পরিচয়দানকারী আঃ মালেক এর সাথে মোবাইল ফোনে মন্তব্য নিতে চাইলে ফোন বন্ধ থাকায় নেওয়া সম্ভব হয়নি।

জালদলিল সম্পাদনকারী নজরুল ইসলাম প্রতিনিধিকে জানান, মূল দলিলটি জাল ছিলো কিনা আমি চিনতে পারিনাই।

সাব-রেজিষ্ট্রার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আমি জাল দলিলের আলামত পেয়ে দলিলটি আটক করেছি। জাল দলিল লিখনের দায়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে সরকার আঃ রশীদ’কে ২হাজার টাকা জরিমানা করেণ। দলিল সম্পাদনে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী হাকিম ফারজানা খানম এর নিকট মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাল দলিল জালিয়াতির সাথে জড়িত থাকার অপরাধে লিখক আঃ রশীদকে ২হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।