শুক্রবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং

আওয়ামী লীগ নিজেদের রাজনৈতিক চরিত্র হারিয়ে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে: রিজভী

মুক্তখবর :
সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯
news-image

ঢাকা, রোববার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ (স্টাফ রিপোর্টার) : গত এক যুগ প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। রোববার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। রিজভী বলেন, দেশের প্রতিটি মানুষ বিশ্বাস করে ক্যাসিনো কেলেঙ্কারির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কোনো কিছুই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অজানা ছিল না। কিন্তু নিজেদের সরকারের দলীয় বাহিনী হিসেবে পরিণত করায় এতদিন তারা ক্যাসিনোতে অভিযান চালাতে সাহস করেননি।

তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি সচেতন নাগরিক মাত্রই বিশ্বাস করেন, রাষ্ট্র ও সমাজে দুর্নীতি অনাচার অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা পুলিশের স্বাভাবিক এবং কাজের অংশ। এর জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের অপেক্ষা করতে হয় না। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের অপেক্ষা করা মানে তাকেও দুর্নীতির অংশীদার বানিয়ে ফেলা।

‘প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি ছাড়া যদি দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়া যায় তা হলে তো বলতেই হবে, গত এক যুগ প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দিয়েছেন, লালন করেছেন।’

রিজভী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার অনুমতি দেননি বলে এই সুযোগে বাংলাদেশ থেকে ৬ লাখ কোটি টাকার বেশি পাচার হয়ে গেছে, দেশের ব্যাংকগুলো খালি হয়েছে আর বেড়েছে সুইস ব্যাংকে শাসকগোষ্ঠীর জমা রাখা টাকার পরিমাণ।

‘ঋণখেলাপির পরিমাণ বেড়ে এখন ১ লাখ ১০ হাজার ৮৭৪ কোটি টাকা। অথচ রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী, জনতা, অগ্রণী, রূপালী, বেসিক ব্যাংকসহ ১১টি ব্যাংক এখন মূলধন সংকটে। এখনও উন্মোচিত হলো না বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ ফান্ডের ৮১০ কোটি টাকা লোপাটের রহস্য।’

তিনি বলেন, কথিত দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে নেমে আওয়ামী লীগ এখন একদিকে শেখ হাসিনাকে, অন্যদিকে তার পিতা মরহুম শেখ মুজিবকে কৃতিত্ব দিতে গিয়ে তালগোল পাকিয়ে ফেলেছে।

আওয়ামী লীগ নিজেদের রাজনৈতিক চরিত্র হারিয়ে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে মন্তব্য করে রিজভী বলেন, তাদের এখন নানারকম মিথ্যাচার এবং ছলচাতুরির আশ্রয় নিতে হচ্ছে। অভিযানের নামে কয়েকটা চুনোপুঁটি ধরার পর জনগণের সামনে দুর্নীতিবাজ সরকারের আসল চেহারা উন্মোচিত হয়ে পড়ায় নিশিরাতের সরকারের মন্ত্রীরা এখন স্বাভাবিক বোধবুদ্ধি হারিয়ে ফেলেছেন।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, দুর্নীতিবিরোধী কথিত অভিযানে সরকারের দুর্নীতি আর অনাচারের নগ্ন চেহারাই উন্মোচিত হয়নি। এ সরকার নিজেদের দলীয় স্বার্থে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ‘কতটা অথর্ব অপদার্থ প্রতিষ্ঠানে’ পরিণত করেছে তারও নির্ভেজাল প্রমাণ মিলেছে।

রিজভী বলেন, দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের আসল উদ্দেশ্য নিয়ে যখন জনমনে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে, তখন জনগণের দৃষ্টি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে এটাকে নিয়ে অহেতুক রাজনৈতিক বিতর্ক উসকে দেয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছেন আওয়ামী লীগের নেতা-মন্ত্রীরা।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যাই বলুক, তাদের মুখে উন্নয়ন আর বুকে দুর্নীতি। উন্নয়নের নামে দুর্নীতি এখন আওয়ামী লীগকে জনমনে ঘৃণার পাত্রে পরিণত করেছে।