মঙ্গলবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

তাড়া খেয়ে পুকুরে ঝাঁপ, ৩ দিন পর যুবকের লাশ উদ্ধার

মুক্তখবর :
অক্টোবর ৮, ২০১৯
news-image

ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৮ অক্টোবর ২০১৯ (নিজস্ব প্রতিনিধি) : বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) সদস্যদের তাড়া খেয়ে পুকুরে ঝাঁপ দেয়ার তিন দিন পর এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের নাম মো. শামীম হাওলাদার (২৮)।

মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে উপজেলার সুন্দরদী গ্রামের মুন্সীবাড়ির পুকুর থেকে শামীমের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। র‌্যাবের দাবি, নিহত শামীম মাদক বিক্রেতা ও একাধিক মামলার আসামি। গত রোববার মাদক কেনাবেচার সময় ধরতে গেলে ভয়ে পুকুরে ঝাঁপ দেন শামীম।

তবে নিহতের স্বজনরা বলছেন, র‌্যাবের ধাওয়া খেয়ে পুকুরে লাফিয়ে পড়ে মারা যান শামীম। নিহত শামীম উপজেলার বেজগাতি গ্রামের মোখলেছ হাওলাদারের ছেলে। এ ব্যাপারে থানায় একটি ইউডি মামলা করা হয়েছে। নিহতের মা খাদিজা বেগম কান্নাজনিত কণ্ঠে বলেন, র‌্যাবের তাড়া খেয়ে আমার ছেলে শামীম পুকুরে পড়ে মারা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, গত ৫ অক্টোবর সন্ধ্যা ৭টার দিকে সুন্দরদী গ্রামের মুন্সীবাড়ির পুকুরের কাছে বসে দুই ব্যক্তি মাদক কেনাবেচা করছিলেন। এ সময় র‌্যাব সদস্যের উপস্থিতি টের পেয়ে ওই দুই ব্যক্তি দৌড় দেয়।

তখন ওই বাহিনীর সদস্যরা দুই ব্যক্তিকে ধাওয়া দেন। এ সময় ভয়ে তারা মুন্সীবাড়ির পুকুরে ঝাঁপ দেন। এ সময় র‌্যাবের সদস্যরা তাদের টর্চলাইট নিয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টা পুকুরের চারপাশ খোঁজাখুঁজি করে কাউকে না পেয়ে ফিরে যান।

পরে ধারণা করা হয়, অন্ধকারের মধ্যে পুকুর থেকে দুই ব্যক্তিই পালিয়ে গেছেন। এ ঘটনার তিন দিন পর আজ নিখোঁজ একজনের ভাসমান মরদেহ পুকুর থেকে উদ্ধার করা হলো।

গৌরনদী থানার ওসি গোলাম সরোয়ার জানান, উপজেলার বেজগাতি গ্রামে মাদক বিক্রেতা ও একাধিক মামলার আসামি শামীম হাওলাদারের মরদেহ মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে সুন্দরদী গ্রামের মুন্সীবাড়ির পুকুরে ভাসতে দেখে স্থানীয়রা থানা পুলিশে খবর দেন।

শামীমের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।

এ ব্যাপারে নিহতের ছোট ভাই শফিকুল ইসলাম সাকিব বাদী হয়ে থানায় একটি ইউডি মামলা করেছেন। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ দুপুরে বরিশাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।