মঙ্গলবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

রোহিঙ্গা কিশোরী ধর্ষণে সেনা সদস্যের সম্পৃক্ততার প্রমাণ মিললে কঠোর ব্যবস্থা : সেনাপ্রধান

মুক্তখবর :
অক্টোবর ১০, ২০১৯
news-image

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর ২০১৯ (নিজস্ব প্রতিনিধি) : সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেছেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় সেনা সদস্যদের সম্পৃক্ততার প্রমাণ মিললে অভিযুক্তরা চাকরিচ্যুত তো হবেই, তাদের সিভিল কারাগারেও পাঠানো হবে। আজ বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সকালে বগুড়া সেনানিবাসের ষষ্ঠ সাঁজোয়া কোরের পুনর্মিলন আয়োজনে অংশ নেয়ার পর গণমাধ্যমকে তিনি এসব কথা বলেন। সেনাপ্রধান বলেন, সেনাবাহিনী বিষয়টি স্বচ্ছতার সঙ্গে খতিয়ে দেখছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আশ্রিতদের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণসহ নিরাপত্তার স্বার্থে সবগুলো ক্যাম্পে কাঁটাতারের বেড়া দেয়া হচ্ছে। শিগগিরই সাতটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণে কাজ শুরু করবে সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীতে অস্বচ্ছতার কোনও সুযোগ নেই উল্লেখ করে আজিজ আহমেদ বলেন, ধর্ষণের ঘটনাস্থলে শুধু সেনাটহলই ছিল না, অন্যান্য বাহিনীর টহলদলও ছিল। কিন্তু আমরা অভিযোগ আসার সঙ্গে সঙ্গে টহলরত সেনা সদস্যদের ক্লোজড করেছি। একজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেলের নেতৃত্বে তদন্ত আদালতও গঠন করা হয়েছে। যদি কোনও সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়, তাকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনা হবে। উল্লেখ্য, ১ অক্টোবর টেকনাফ লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সি-২২ এর বাসিন্দা এক কিশোরী হ্নীলার রঙ্গীখালী এলাকায় গেলে ধর্ষণের শিকার হন। এ ঘটনায় গেল বৃহস্পতিবার রাতে ভুক্তভোগীর বাবা বাদী হয়ে টেকনাফ মডেল থানায় মামলা করেন।