রবিবার, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আট ভুয়া সাংবাদিক আটক

মুক্তখবর :
অক্টোবর ১৩, ২০১৯
news-image

ঢাকা, রোববার, ১৩ অক্টোবর ২০১৯ (নিজস্ব প্রতিনিধি) : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রতারক চক্রের আট সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব-১৪ এর সদস্যরা। গতকাল শনিবার দুপুরের তাদের আটকের পর রাতে সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। আটকরা হলেন, শরিয়তপুর জেলার সদর থানার চেতলীয়ার টুমচর গ্রামের ইদ্রিস সরদারের ছেলে কাউসার ইসলাম সানি (২৬), ঢাকার দারুস সালামের মোহাম্মদ কালামের ছেলে মেহেদী হাসান (২৫), খুলনা জেলার সদর থানার শেখপাড়ার সেলিম খানের ছেলে তানজির খান রনি (৩৫), পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলার সদরের আবু জাফরের ছেলে আহসান উদ্দিন (৩৪), একই জেলার বাউফল থানার কেশবপুর গ্রামের শাহ আলমের ছেলে মো. আহসান (৩১), কুমিল্লা জেলার মেঘনা থানার আল আমিনের মেয়ে আয়েশা আক্তার (২১), ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁওয়ের তালতলা মোল্লাপাড়ার সাত্তার শিকদারের ছেলে রুবেল শিকদার (২৫) ও ঢাকার খিলগাঁও চৌধুরীপাড়ার সরকার মো. হোসেনের ছেলে সরকার শিপলু (৩৬)।

জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একটি ঘটনায় একজন আহত হয়ে রাজধানী ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন। সেই ব্যক্তির বোনকে প্রতারকরা সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে ফুসলিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মানববন্ধন করতে বলেন। সেই ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এসে সংবাদ সংগ্রহ করতে ৫০ হাজার টাকায় চুক্তিবদ্ধ হয় ও অগ্রিম ২০ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে ওই নারী তার ভাইয়ের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধনের আয়োজন করেন। মানববন্ধনে ওই প্রতারকরা গাড়ি নিয়ে সেখানে হাজির হয়। তাদের দেখে স্থানীয়দের সন্দেহ হলে একজনকে আটক করা হয়। বিষয়টি আচ করতে পেরে অন্য প্রতারকরা গাড়ি নিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটিনাটি র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পে জানালে কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের ও সিনিয়র এডি চন্দন দেবনাথের নেতৃত্বে অভিযান চালায়। অভিযানে সদর উপজেলার সুহিলপুর বাজার এলাকা থেকে আরও সাতজন প্রতারককে আটক করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে এটিএন বাংলা টিভির, বিজয়টিভি ও এবি চ্যানেল নামের ভুয়া বুম (লোগো) উদ্ধার করা হয়।

এছাড়া তাদের কাছ থেকে বাংলাটিভির ভুয়া আইডি কার্ড, সময়ের অপরাধচক্র নামের একটি পত্রিকার ভুয়া আইডি, ক্যামেরা ও জ্যাকেট উদ্ধার করা হয়। র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পে কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের জানান, প্রতারক চক্রটি সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় প্রতারণা করে আসছে। তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন মিডিয়ার ভুয়া পরিচয়পত্র, ভিডিও ক্যামেরা, ডিএসএলআর ক্যামেরা, ক্যামেরার স্ট্যান্ড ও লোগো পাওয়া গেছে। আটকের পর যাচাই-বাছাই শেষে তাদেরকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।