বৃহস্পতিবার, ২১শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

মাঝারি-ভারী মোটরযানের চালক সঙ্কটে দেশ

মুক্তখবর :
অক্টোবর ২৮, ২০১৯
news-image
ঢাকা, সোমবার, ২৮ অক্টোবর ২০১৯ (মুক্তখবর রিপোর্ট) : দেশে মাঝারি ও ভারী মোটরযানের চালকের সঙ্কট তীব্র আকার ধারণ করেছে। পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে, রাষ্ট্রায়ত্ত পরিবহন সংস্থা বিআরটিসি প্রয়োজনীয় চালকের জন্য বার বার বিজ্ঞপ্তি দিয়েও আশানুরূপ চালক পাচ্ছে না। বিআরটিএর হিসাবে সারা দেশে নিবন্ধিত মোটরযানের সংখ্যা প্রায় ৩৮ লাখ। তার বিপরীতে বিআরটিএ অনুমোদিত চালকের সংখ্যা মাত্র ১৯ লাখ। দেশে মধ্যম ও ভারী দুই শ্রেণীর মোটরযান চালক সংকট তীব্র। আর ওই সংকট কাটাতে সাময়িকভাবে লাইসেন্সপ্রাপ্তির শর্ত শিথিল করা হয়েছে। সাময়িকভাবে ৩ বছরের বদলে মাত্র এক বছরের অভিজ্ঞতা দিয়েই মধ্যম শ্রেণীর মোটরযান চালানোর লাইসেন্স পাচ্ছে হালকা মোটরযান চালকরা। একইভাবে ৩ বছরের পরিবর্তে এক বছরের অভিজ্ঞতা থাকলেই মধ্যম শ্রেণীর মোটরযানচালকরা পাচ্ছে ভারী মোটরযান চালানোর লাইসেন্স। আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত তা কার্যকর থাকবে। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) বিদ্যমান নিয়মানুযায়ী প্রয়োজনীয় যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এবং পরীক্ষার পর চালককে প্রথমে হালকা মোটরযানের (ওজন ২৫০০ কেজির নিচে) পেশাদার লাইসেন্স প্রদান করা হয়। ৩ বছর হালকা মোটরযান চালানোর পর একজন চালক মধ্যম শ্রেণীর মোটরযান (২৫০০ থেকে ৬৫০০ কেজি) চালানোর লাইসেন্স পাওয়ার যোগ্য হয়ে ওঠেন। একইভাবে ৩ বছর মধ্যম শ্রেণীর মোটরযান চালানোর পর চালককে ভারী মোটরযান (৬৫০০ কেজির ওপরে) চালানোর জন্য পেশাদার লাইসেন্স দেয়া হয়। কিন্তু চালক সঙ্কটের কারণে রাষ্ট্রায়াত্ত পরিবহন সংস্থা বিআরটিসি ওই শর্ত শিথিলের প্রস্তাব করেছে। প্রস্তাব অনুযায়ী নিয়োগপ্রাপ্ত হালকা মোটরযানের লাইসেন্সধারী চালকরা ৩ বছরের কম অভিজ্ঞতা নিয়েই ভারী মোটরযানের লাইসেন্স পাবেন। একই সঙ্গে তাদের মাঝারি মোটরযান চালানোরও বাধ্যবাধকতা থাকবে না। সূত্র জানায়, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি) ভারত থেকে ১ হাজার ১০০ বাস-ট্রাক কিনছে। আগামী এপ্রিল নাগাদ সংস্থাটির বহরে ওসব যানবাহন যোগ হবে। নতুন ওসব বাস-ট্রাকের জন্য ৮ শতাধিক চালক প্রয়োজন। কিন্তু পৃথক দুটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েও প্রয়োজনীয়সংখ্যক চালক পাচ্ছে না বিআরটিসি। এ অবস্থায় বিআরটিসি কর্মকর্তারা নিয়োগ ও লাইসেন্সপ্রাপ্তির শর্ত শিথিলের প্রস্তাব দিয়েছে। বিআরটিসির বিজ্ঞপ্তিগুলোয় চালকদের প্রয়োজনীয় যোগ্যতা সম্পর্কে বলা হয়, আবেদনকারীদের বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স ও গাড়ি চালানোর ৩ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। পাশাপাশি ভারী মোটরযান চালানোর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। বিআরটিসি এখন পর্যন্ত ৮১৬ জন চালকের বিপরীতে মাত্র ১৮৪ জনকে প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত করেছে। মূলত চালক সঙ্কটের কারণেই ভারী লাইসেন্সধারী চালকের বদলে হালকা লাইসেন্সধারী চালক নিয়োগের পরিকল্পনা করা হচ্ছে। তবে ওই চালকদের বিআরটিসির প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দিয়ে ভারী মোটরযান চালানোর উপযোগী করে তোলা হবে।