মঙ্গলবার, ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মাদরাসা ছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ

মুক্তখবর :
অক্টোবর ৩১, ২০১৯
news-image

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৯ (নিজস্ব প্রতিনিধি) : রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলায় যশাই ইউনিয়নের বাঁশবাড়ী গ্রামের নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক মাদরাসাছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণের ফলে ছাত্রীটি গর্ভবতী হয়ে পড়ে। এরপর গর্ভপাত করানো হয়। এই অভিযোগে ওই ছাত্রী বাদী হয়ে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে পাংশা থানায় মামলা করেন। জানা গেছে, একই গ্রামের গফুর খাঁর ছেলে কাবিল খাঁ দীর্ঘদিন ধরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই মাদরাসা ছাত্রীর সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক স্থাপন করে। এ সম্পর্কের জের ধরে ওই ছাত্রী গর্ভবতী হয়ে পড়েন এবং এ বিষয়ে কাবিল খাঁকে জানায় এবং বিয়ের চাপ দিলে তাকে বিয়ে করতে অস্বীকার করে। একইসঙ্গে কৌশলে কাবিলের মা বড়ই বেগম ওই ছাত্রীকে গর্ভপাত করানোর ওষুধ খাইয়ে তার গর্ভপাত ঘটান। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা না হওয়ায় ওই ছাত্রী নিজে বাদী হয়ে পাংশা মডেল থানায় মামলা করে। মামলার আসামিরা হলো, কাবিল খাঁ, তার মা বড়ই বেগম, একই গ্রামের গফুর খার ছেলে মঞ্জু খা, হিসাই মিয়ার ছেলে সোনাই মিয়া, ইসলাম মিয়ার ছেলে নিলু মিয়া। এদিকে ওই মামলা তুলে নিতে আসামিপক্ষ হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ওই ছাত্রীর বাবা গোলাম রব্বানী মোল্লা। তিনি আরও জানান, এখন পর্যন্ত কোনও আসামিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারেনি।