মঙ্গলবার,১৪ই জুলাই, ২০২০ ইং

অস্ত্রোপচারের পর নিবিড় পর্যবেক্ষণে উইলস লিটলের শিক্ষিকা

মুক্তখবর :
মার্চ ১১, ২০২০
news-image

ঢাকা, বুধবার, ১১ মার্চ ২০২০ (স্টাফ রিপোর্টার) : ঢাকার উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক সৈয়দা ফাহিমা বেগমের (৫০) বিচ্ছিন্ন হওয়া হাতটি জোড়া লাগানো হয়েছে। অস্ত্রোপচারের পর তাকে ৭২ ঘণ্টার জন্য নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সারা বাংলাদেশের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, প্রায় ৬ ঘণ্টা প্রচেষ্টায় শিক্ষক সৈয়দা ফাহিমা বেগমের হাতের অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়েছে। এরপর তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে। তার হাতটি কাজ করবে কি না, ৭২ ঘণ্টা না যাওয়া পর্যন্ত কিছুই বলা যাবে না।

জানা যায়, গতকাল দুপুর ১টার দিকে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় দুর্ঘটনায় বাম হাত বিচ্ছিন্ন হয় শিক্ষক সৈয়দা ফাহিমা বেগমের। পরে তাকে ঢাকায় এনে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে অস্ত্রোপচার শুরু হয়। বিকেল ৫টা থেকে ছয় সদস্যের চিকিৎসক দল একনাগাড়ে রাত পৌনে ১২টা পর্যন্ত অস্ত্রোপচার করেন। এরপর শিক্ষকের মাথাসহ শরীরের অন্যান্য আঘাতের শুশ্রূষা শুরু হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের পক্ষ থেকে টুঙ্গিপাড়ায় শিক্ষা সফর ও বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের আয়োজন করা হয়। গতকাল সকালে ছয়টি মিনিবাস ও মাইক্রোতে ১২৫ জন শিক্ষার্থী, শিক্ষক, স্কুলের কর্মকর্তা-কর্মচারী রাজধানীর কাকরাইল থেকে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে যাত্রা শুর করেন।

একটি বাসে শিক্ষিকা সৈয়দা ফাহিমা বেগমসহ ৩১ জন শিক্ষার্থী ছিলেন। তাদের বাসটি পাথালিয়া পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি দ্রুতগামী গাড়িকে সাইড দিতে গিয়ে সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকের পেছনে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে ওই শিক্ষিকার একটি হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এ ঘটনায় শিক্ষার্থী আবদুর রহমান, আবু নাফিম চৌধুরী, শয়নসহ ১৫ জন আহত হয়।