মঙ্গলবার,৭ই জুলাই, ২০২০ ইং

বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভ দমনে সেনা মোতায়েনের হুমকি ট্রাম্পের

মুক্তখবর :
জুন ২, ২০২০
news-image

ঢাকা, মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০ (মুক্তখবর ডেস্ক): যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশি নিপীড়নে কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা ও বর্ণবাদের অবসানের দাবিতে চলা বিক্ষোভ দমনে সেনা অভিযান চালানোর হুমকি দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। স্থানীয় সময় সোমবার তিনি এ ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি। সহিংসতা ছড়িয়ে পড়া শহরগুলোর মেয়র ও রাজ্যগুলোর গভর্নররা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে সেনা মোতায়েন করে ‘তাৎক্ষণিকভাবে সমস্যা সমাধান’ করা হবে বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প।

টানা সপ্তম দিনের মতো সোমবারও যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় সবগুলো শহরেই বিক্ষোভ-সহিংসতা অব্যাহত ছিল। ২০টি রাজ্যের ৪০টি শহরে রাত্রিকালীন কারফিউ জারি ছিল। বিক্ষোভের অন্যতম কেন্দ্রস্থল নিউইয়র্কে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার পর্যন্ত কারফিউয়ের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। মিনিয়াপোলিসে গত সোমবার জর্জ ফ্লয়েড নামে এক কৃষ্ণাঙ্গ পুলিশের হাতে খুন হওয়ার পর থেকে বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে।

সোমবার সন্ধ্যায় হোয়াইট হাউসের রোজ গার্ডেনে সংবাদ সম্মেলন করেন ট্রাম্প। সেখানে সেনা মোতায়েনের ঘোষণা দেওয়ার পাশাপাশি বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভকারীদের ‘দাঙ্গাবাজ, লুটেরা ও পেশাদার নৈরাজ্যবাদী’ বলে উল্লেখ করেন তিনি। আগের দিন রোববার ফ্যাসিবাদবিরোধী গোষ্ঠী অ্যান্টিফাকে ‘সন্ত্রাসী সংগঠন’ বলেও আখ্যা দেন ট্রাম্প।

‘শৃঙ্খলা’ ফেরাতে রাজ্যের গভর্নরদের ন্যাশনাল গার্ড মোতায়েনের আহ্বান জানিয়েছেন ট্রাম্প। ইতোমধ্যে বিক্ষোভ দমনে দেশটিতে ন্যাশনাল গার্ডের ১৬ হাজার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। সেনা মোতায়েনের বিষয়ে ট্রাম্পের হুমকির সমালোচনা করেছেন ডেমোক্রেট দলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, ‘আমেরিকার জনগণের বিরুদ্ধেই আমেরিকার সেনা ব্যবহার করতে চান ট্রাম্প’।

ট্রাম্প যখন সংবাদ সম্মেলনে কথা বলছিলেন তখন হোয়াইট হাউসের বাইরে বিক্ষোভকারীরা ফ্লয়েড হত্যার বিচার ও বর্ণবাদের অবসান চেয়ে স্লোগান দিচ্ছিলেন। ট্রাম্পের সংবাদ সম্মেলন থেকেও তা শোনা যাচ্ছিল।

সংবাদ সম্মেলন শেষে হোয়াইট হাউসের পাশেই সেন্ট জোনস গির্জায় যান ট্রাম্প। রোববার রাতে এ গির্জাটিতে আগুন লেগেছিল। সেখানে গিয়ে বাইবেল হাতে ছবি তোলেন তিনি। তবে তার গির্জায় যাওয়ার পথ ‘পরিষ্কার’ করতে হোয়াইট হাউসের সামনে অবস্থান নেওয়া শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের ওপর টিয়ার শেল ছোঁড়ে ও লাঠিপেটা করে পুলিশ।

দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের ওপর পুলিশের শক্তি প্রয়োগে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সেন্ট জোনস গির্জার বিশপ। ওয়াশিংটন ডিসির মেয়র মুরিয়েল বাউসার বলেছেন, কারফিউ শুরু হওয়ার ২৫ মিনিট আগে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের ওপর পুলিশের এ ধরনের শক্তিপ্রয়োগ মেনে নেওয়া যায় না। কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের ডেমোক্রেট দলীয় স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও উচ্চকক্ষ সিনেটের নেতা চাক শুমার বিবৃতি দিয়ে ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন।

শুধু ওয়াশিংটনেই নয়, যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থানে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের ওপর সোমবার চড়াও হয়েছে পুলিশ। বার্তা সংস্থা এপি পুলিশের দেওয়া তথ্য উল্লেখ করে জানিয়েছে, এক সপ্তাহ ধরে চলা বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভ থেকে পাঁচ হাজার ৬০০ মানুষকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে শুধু নিউইয়র্ক ও লস অ্যাঞ্জেলস শহর থেকেই আটক করা হয়েছে এক হাজার ৭০০ জনকে।