শুক্রবার,১০ই জুলাই, ২০২০ ইং

জর্জ ফ্লয়েড হত্যার ঢেউ ছড়িয়ে পরছে ফ্রান্সে রাস্তায় রাস্তায়

মুক্তখবর :
জুন ৪, ২০২০
news-image

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০ (মুক্তখবর ডেস্ক): মহামারী করোনা সংকটের মধ্যে আমেরিকার পর অবশেষে ফ্রান্সেও ছড়িয়ে পড়লো বর্ণবাদী আন্দোলন । টেনে আনা হলো ৪ বছর আগের ঘটনাকে । ফ্রান্সের প্যারিসেও গত ২ জুন মঙ্গলবার দুপুরে শুরু হয়েছে এই আন্দোলন । প্যারিস ১৭ এরিয়ার Porte de Clichy এর সামনে শুরু হয়ে এই আন্দোলন । আমেরিকায় কালো যুবক হত্যাকান্ডে আন্দোলনের ঢেউ চলে আসলো ফ্রান্সেও । তবে প্যারিসে এই আন্দোলনের মূল ইস্যুটি টেনে আনা হয়েছে ২০১৬ সালের ঘটনাকে । আদামা তোরেস নামে ২৪ বছরের অফ্রিকান দেশ মালির বংশদ্ভূত এই ফরাসি নাগরিকের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে । ২৪ বছরের আদামা তোরেস ২০১৬ সালে ফ্রান্স পুলিশের হাতে নিহত হয় । ফ্রান্স পুলিশ বলেছিলো সে হার্ট অ্যাটাক করে মারা যায় । প্যারিসে তখন আন্দোলনও হয়েছিলো । কিন্তু গত এক সপ্তাহ ধরে আমেরিকায় কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর জেরে আমেরিকায় সহিংস আন্দোলন চলছে । এই আন্দোলনের সূত্র ধরে ফ্রান্সেও আফ্রিকান বংশদ্ভূত ফরাসি যুবকরা গতকাল প্যারিসে পুলিশের সহিংসতার বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামে । তবে এই আন্দোলনে ফ্রান্স পুলিশ অনুমতি দেয়নি । ২০১৬ সালে ফ্রান্স পুলিশি হেফাজতে নিহত আদামা তোরেসের মৃত্যুর পর হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ প্রতিবাদ সমাবেশ করে । গঠিত হয় অ্যাডামা ট্রোরি পরিবারের সমর্থক গোষ্ঠি। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অ্যাডামা ট্রোরি পরিবারের সমর্থক গোষ্ঠির ২০ হাজার সমর্থক প্যারিসের প্লাস দ্যো ক্লিসি এলাকায় বিক্ষোভ করে। ফ্রান্স পুলিশ বলছে বিক্ষোভকারীরা ছিল খুবই মারমুখি । বিক্ষোভকারীরা পুলিশি বাঁধা উপেক্ষা করে জড়ো হতে থাকে আদামার বোনের নেতৃত্বে। প্রথমে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ চললেও এক পর্যায়ে জ্বালাও, পোড়াও ও সহিংসতায় রূপ নেয় । পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বিক্ষোকারীদের ছত্রভঙ্গ করার জন্য টিয়ার গ্যাস ছুরলেই বিক্ষোভকারীরা আরো মারমুখী হয়ে উঠে । পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বাহিরে চল যায় এবং পুলিশ পিছু হটে । এই বিক্ষোভ আন্দোলন গভীর রাত পর্যন্ত চলে । অনেকে আশংকা করছেন এই সহিংসু আনন্দোলন সমগ্র ফ্রান্সে ছড়িয়ে যেতে পারে । আমেরিকার পর ফ্রান্সেও যাতে বর্ণবাদী সন্ত্রাসী কর্মকান্ড সৃষ্টি না হয় তার জন্য ফ্রান্স পুলিশ আন্দোলনকারীদের উপর কঠোর নজরদারী করছে ।