শনিবার,৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং

নেতিবাচক চিন্তা থেকে দূরে থাকার উপায়

মুক্তখবর :
জুন ২৯, ২০২০
news-image

নেতিবাচক চিন্তায় আবদ্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে নানান মানসিক জটিলতা সৃষ্টি করে। তাই খুব বেশি খারাপ পরিস্থিতিতে যাওয়ার আগেই নিজের মানসিক পরিচর্যা করা উচিত।মানসিক স্বাস্থ্য-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে ‘মাই অনলাইন থেরাপি’র মনোবিজ্ঞানী ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা এলিনা টুরনি বলেন, “নেতিবাচক চিন্তাভাবনা যখন সর্পাকার হয়ে যায় তখন তাকে বলা হয় ‘চিন্তার ফাঁদ’ বা ‘’অপ্রয়োজনীয় চিন্তন  প্রক্রিয়া’। এর মধ্যে সাধারণ হল, বিপর্যয় (খারাপ কিছু সম্পর্কে ধারণা করতে পারা), সাদা ও কালো চিন্তা (ইতিবাচক ও নেতিবাচক চিন্তা) এবং আবেগিক যুক্তি (কোন বিষয় সম্পর্কে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি কেমন তার উপর ভিত্তি করে)।”

যদিও চিন্তাভাবনা গুরুতর বিষয় নয়। কিন্তু যখন এমন নেতিবাচক চিন্তার চক্রে মানুষ আবদ্ধ হয়ে যেতে থাকে তখন চিন্তাভাবনার প্রভাব পড়ে কাজ কর্মে। এই নেতিবাচক চিন্তার চক্রে আবদ্ধ হয়ে তার ভিত্তিতে কাজ করা শুরু করে এবং তা আবার প্রভাব ফেলে নিজস্ব বিশ্বাসের ওপর, এভাবেই এই চক্র চলতে থাকে।

প্রথমেই নেতিবাচক চিন্তা বাদ দেবেন না: ‘জয় অ্যান্ড ফিয়ার’ বইয়ের লেখক ডা. কার্লা মারি ম্যানলি বলেন, “নেতিবাচক চিন্তার প্রতি মনোযোগ দেওয়া ও তাতে বিরতি দেওয়া জরুরি কিন্তু তা নিয়ে মজা নেওয়া বা এতে আবদ্ধ হয়ে যাওয়া ঠিক নয়।”

গবেষণায় দেখা গেছে, নেতিবাচক চিন্তা বাদ দাওয়া গুরুত্বপূর্ণ নয় কারণ এটা মানুষকে শক্তিশালী করে তলে এবং পরে নিজের দৃষ্টিভঙ্গি ও ইতিবাচক মনোভাব কাজে লাগিয়ে নেতিবাচক চিন্তা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে।

শ্বাস নিতে ভুলবেন না: মানুষ খুব বেশি চিন্তিত থাকলে শ্বাস নিতেও ভুলে যায়। এই সময় চোখ বন্ধ করে গুনে গুনে চার বার বড় বড় শ্বাস নিন এবং ধীরে ধীরে ছাড়ুন। কখনও খুব বেশি মানসিক চাপ অনুভব করলে বা দুশ্চিন্তায় পড়লে নিজের প্রতি মনোযোগী হন এবং কিছুটা সময় নিয়ে শ্বাস নিন, অশান্ত মন শান্ত হবে।

এমন পরিস্থিতিতে নিজেকে সচেতন রাখতে প্রয়োজনে নোট লিখে চোখের সামনে রাখার পরামর্শ দেন, ম্যানলি।

নিজের সকল চিন্তাধারাকেই বিশ্বাস করবেন না: মাথায় একটা চিন্তা এসেছে মানেই যে তা সত্যি এমনটা ভেবে নেওয়ার কোনো কারণ নেই। চিন্তাভাবনা ক্রমাগত নেতিবাচক হতে থাকলে নিজেকেই এটা নিয়ে প্রশ্ন করার পরামর্শ দেন, টুরনি। আপনি যা ভাবছেন তার পক্ষে যুক্তি কতটা বা এমন সিদ্ধান্তে উপনিত হওয়ার আদৌ কোনো কারণ আছে কি-না তা ভেবে দেখুন। এছাড়াও, আপনি কী কেবল ঘটনার খারাপ দিকটাই দেখছেন নাকি সমগ্র বিষয়টা নিয়েই ভাবছেন তা আবারও ভেবে দেখুন।

ইতিবাচক বার্তার দিকে মনোযোগ দিন: নিজেকে শান্ত রাখতে ও শক্তিশালী অনুভব করতে ইতিবাচক কথা ও বার্তার দিকে মনোযোগ দেন। যেমন- সব ঠিক হয়ে যাবে, সব কাজ ঠিক মতো হবে, কাজ হবে ইত্যাদি। ম্যানলি, এই ধরনের ইতিবাচক বাক্য ওয়ালেট, আয়না বা সহজেই চোখে পড়ে এমন স্থানে রাখার পরামর্শ দেন। মানসিক অবস্থা ভালো থাকলেও এই সকল ইতিবাচক কথা স্মরণ করুন যেন মস্তিষ্ক এতে সম্মত হয় ও সাড়া দেয়। পরবর্তিতে খারাপ সময় কাটিয়ে উঠতে এই সকল মন্ত্র বাক্য আত্মনিষ্ঠ হতে ও শান্ত থাকতে সহায়তা করবে। প্রয়োজনে এই সকল বাক্য রাখা আছে এমন স্থান হাতে স্পর্শ করুন, এতে ভালো অনুভূতি কাজ করবে।

নিজেই নিজের বন্ধু হন: নিজেকে নিয়ে খুব খারাপ চিন্তা মাথায় এলে ভাবুন, এমন বিষয় বন্ধুকে বলতেন কিনা। যদি নিজের বন্ধুর সঙ্গে বা তার সম্পর্কে এমন খারাপ কথা বলতে না পারেন তাহলে নিজেই নিজের বন্ধু হয়ে যান এবং এই ধরনের নেতিবাচক চিন্তাভাবনা থেকে নিজেকে বিরত রাখুন। টুরানি আরও পরামর্শ দেন, “কোথা থেকে এমন আত্মসমালোচনা আসে তা খুঁজে বের করুন। পুরানো অভিজ্ঞতাও যাচাই করে দেখুন তার কোনো প্রভাব আপনার ওপর বর্তমানে প্রভাব রাখছে কিনা।”

শান্তিপূর্ণ চিত্র চিন্তা করুন: মাথায় খারাপ কোনো চিন্তা এলে তা থেকে বেড়িয়ে আসতে সুন্দর মনোরম কোনো জ্যায়গার কথা চিন্তা করার পরামর্শ দেন ম্যানলি। খোলা মাঠ, নীরব কোনো সৈকত অথবা ছায়া ঘেরা পাহাড়ের চূড়ায় নিজেকে কল্পনা করুন। নিজেকে এমন শান্ত জায়গায় নিজের পছন্দের কোনো প্রাণি বা কোনো বন্ধুর সঙ্গে কল্পনা করুন।

প্রতীকী ছবির মডেল: চৈতি।