সোমবার,৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

আদালতের গ্রেফতারি পরোয়ানা পুলিশের জন্য প্রযোজ্য কি?

মুক্তখবর :
মে ৮, ২০১৯
news-image

ঢাকা, বুধবার, ০৮ মে ২০১৯ (স্টাফ রিপোর্টার) : আদালতের গ্রেফতারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে দীর্ঘ ২ বছর বহাল তবিয়তে চাকরি করছেন পুলিশ কনস্টেবল পুলক হাওলাদার। ২০১৭ সালের ৭ মে ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত পারিবারিক আদালতের বিচারক মারুফা আহমেদ পারিবারিক মোকদ্দমা নং-১০৯/১৬ এর বিবাদী কনস্টেবলের বিরুদ্ধে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা মামলার বাদিনী সেলিনাকে প্রদান করার রায় দেন। যে টাকা রায় প্রদানের ৪৫ দিনের মধ্যে পরিশোধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু মামলার বিবাদী পুলক হাওলাদার রায়ের প্রতি কোনরূপ তোয়াক্কা না করায় মামলার বাদী সেলিনা একই আদালতে পারিবারিক ডিক্রিজারী মোকদ্দমা নং-১১৩/১৭ দায়ের করেন। যে মোকদ্দমায় পুলক হাওলাদার পুলিশ নং-৭৫৯৬০৮৭০৬, পিতা : জগবন্ধু হাওলাদার রাজারবাগ পুলিশ লাইনস, ঢাকা কে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। আদালত থেকে বিগত দু’বছরে কয়েক দফা সাজাপ্রাপ্ত এই আসামীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী  পরোয়ানা পাঠানো হলেও তা কার্যকর হয়নি। সর্বশেষ গত ২৪ এপ্রিল স্মারক নং-২০৯ মূলে এসিআর ও রাজারবাগ পুলিশ লাইসন্স ঢাকা বরাবর গ্রেফতারী পরোয়ানা পাঠানো হয়। পারিবারিক আদালতে মামলার বাদী সেলিনার অভিযোগটি ছিল তার স্বামী মোঃ কালাম একটি মাদক মামলায় গেন্ডারিয়া থানায় গ্রেফতার হলে একই থানার পুলিশ কনস্টেবল পুলক হাওলাদার বাদিনীর সাথে অবৈধ মেলামেশা শুরু করে। ফলে বাদিনীর গর্ভে ২০১১ সালের ২৬ এপ্রিল এক কন্যা সন্তান জন্ম হয়। পরবর্তীতে এলাকাবাসী যে সন্তানকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য চাপ দিলে বিবাদী পুলক হাওলাদার এতে অস্বীকৃতি জানায় এবং বাদী সেলিনাকে হুমকি প্রদান করে। বাদী নিজের এবং সন্তানের ভরণপোষণের দাবী জানিয়ে পারিবারিক আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।