শনিবার,১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আবাসিকের স্থলে বানিজ্যিক ভবননির্মাণ করছেন উত্তরখানের রশিদ

মুক্তখবর :
সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯
news-image

পর্ব-৩

শিমুলি আক্তার নীলু : রাজউকের নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ইমারত নির্মাণের ব্যত্যয় ঘটিয়ে নকশার বিচ্যুতি করে আবাসিকের স্থলে বানিজ্যিক ভাবে ভবন নির্মাণ করেছেন উত্তরখান থানাধীন হেলাল মার্কেট এলাকার বঙ্গবন্ধু রোড়ের ২২৬/১ নং প্লটের মালিক মোঃ আবদুর রশিদ। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ রাজউক উত্তরা জোন ২ এর আওতাধীন উত্তরখান থানাধীন হেলাল মার্কেট মোড় থেকে দক্ষিন দিকের বঙ্গবন্ধু রোড়ের ২২৬/১ নং প্লট সাড়ে ৫ কাঠা জমির উপর ৭ তলা আবাসিক ভবনের অনুমোদন নিয়ে প্রায় ৪র্থ ছাদ ঢালাইয়ের পর ,উপরের কাজ আপাতত বন্ধ রেখে । নিচের কাজ সর্ম্পন্য করে নিচ তলা থেকে আরম্ব করে তয় তলা পর্যন্ত বানিজ্যিকভাবে গার্মেন্টস/কারখানা করে ভাড়া চালিয়ে যাচ্ছেন। রাজউকের নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে নকশার বিচ্যুতি করে নির্মীতব্য ভবনের সামনের রাস্তাটি ডেভের নকশা অনুযায়ী ৩০ ফিট থাকলেও এই আব্দুর রশিদ সরকারী রাস্তা না ছেড়ে আনুমানিক প্রায় ৮/১০ফিট রাস্তা দখল করে রেখেছেন। তাছাড়াও রাজউকের নিয়ম অনুযায়ী ভবন নির্মাণ করার সময় রাস্তার পাশে ভবন মালিককে ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে প্রায় ৬ ফিট রাস্তা ছাড়তে হবে কিন্তু এ ভবন মালিক রাজউকের আইন না মেনে নিজের ইচ্ছেমত সরকারী রাস্তাসহ আনুমানিক ১৪/১৬ ফিট রাস্তা দখল করে ভবনের পশ্চিম পাশে প্রায় ৬/৭ ফিট ডেভিয়েশন করে সুকৌশলে দ্রুত গতিতে নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন ভবন মালিক মোঃ আবদুর রশিদ। ভবনে নেই তথ্য সম্বলিত সাইনবোর্ড জনসাধারনের সুবিধার্থে ব্যবহার করা হচ্ছে না সেফটি নেট। রাজউকের প্রচলিত নিয়মের তোয়াক্কা না করে ভবন নির্মাণের যে ১৪ টি শর্ত রয়েছে, তা না মেনে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে ভবন নির্মাণ করছেন। সরজমিন অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এসেছে এসব তথ্য। নকশার অনুমোদন থাকা সত্ত্বেও রাজউকের নির্দেশনা মানছেন না উত্তরখান এলাকার বিভিন্ন প্লট মালিকরা। প্লট মালিকরা রাজউকের প্রচলিত নিয়মের তোয়াক্কা না করে নকশার বিচ্যুতি করে আবাসিকের স্থলে বানিজ্যিক ভবন নির্মাণ করেছেন। এতে ইমারত নির্মাণ আইনের স্পষ্ট ব্যত্যয় ঘটেছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। এ বিষয়ে ভবন মালিক মোঃ আবদুর রশিদ এর নিকট তাঁর নির্মীতব্য ভবন সর্ম্পকে জানতে ছাইলে তিনি দৈনিক মুক্ত খবরকে বলেন আমি সর্বমোট ৬ তলা ভবন নির্মানের জন্য অনুমোদন নিয়েছি তার মধ্যে ৩ তলা বানিজ্যিক ভাবে অনুমোদন নেওয়া। আমার ভবন আমি নির্মাণ করছি তাতে কার কি আসে যায়,তবে রাজউকের কোন লোক এখানে এখনো আসেননি,আসলে আমার সমস্যা কি আমার জায়গায় আমি বাড়ি করে গারমেন্টস ভাডা দিব না বাসা ভাড়া দিব সেটা আমার ব্যাপার। স্থানীয় এলাকাবাসীরা জানান এর ভবনের কারনে যেকোন সময় এখানে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে,তবে রাজউক থেকে লোক আসতে দেখেছি। আমরা দেখেছি রাজউক থেকে ইমারত পরিদর্শকরা এসে কাজ বন্ধ করে দিয়ে বাড়ির মালিককে তার ফাইল নিয়ে পরদিন দেখা করতে বলেন মালিক তার কথা মত ফাইল নিয়ে পরদিন গেলে সেই বাড়ির আর কোন সমস্যাই থাকেনা ,তারা তাদের মত কাজ চালিয়ে যান। তার পরেও রাজউকের লোক এই রাস্তা দিয়ে আসা যাওয়ার সময় তাদের কাজ চলতে দেখলেও আর কিছুই বলেন না। এ বিষয়ে রাজউকের উত্তরা জোন ২ এর দায়িত্বে নিয়োজিত অথরাইজড অফিসারের মুঠোফোনে কয়েকবার ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।