সোমবার,১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

১টি টাকাও অবৈধভাবে আয় করেননি কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর আলম

মুক্তখবর :
নভেম্বর ৪, ২০১৯
news-image

সোমবার (০৪ নভেম্বর) দুপুরে মিথ্যা-বানোয়াট তথ্য ছড়িয়ে সম্মান ক্ষুণ্ন ও সংবাদ প্রকাশের হুমকির প্রতিবাদে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন কথা বলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর আলম।
নবগঠিত কাউন্সিলর দাবি করেন, গত ৭ মাস আগে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৩৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। কিন্তু এখন পর্যন্ত সরকারি কোনও বরাদ্ধ পাননি। সরকারিভাবে দেয়া হয়নি তাকে কোনো কার্যালয়, সচিব ও পিওন। এই ৭ মাসে ৩৭নং ওয়ার্ডে যতটুকু উন্নয়ন হয়েছে, সবটুকুই করেছেন নিজের টাকায়। জমা-জমি অর্থ-সম্পদ যা আছে সবই তার পৈত্রিক। অবৈধ কোন কিছুই নেই তার। আর কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়ে ১টি টাকাও তিনি অবৈধভাবে আয় করেননি। জাহাঙ্গীর আলম চ্যালেঞ্জ করে বলেন, ১টি অবৈধ টাকা আয়ের যদি কেউ প্রমাণ দিতে পারেন তাহলে কাউন্সিলরের পদ ছেড়ে দেবো,নিজেই পদত্যাগ করবো।
তিনি বলেন, চলতি বছরের ২৮ ফেব্রায়ারি নবগঠিত এই ওয়ার্ডে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলর হিসেবে মাত্র ৭ মাস বয়স। এর মধ্যে সরকারি কোনও বরাদ্ধ দেয়া শুরু হয়নি। কাউন্সিলর নির্বাচনের পূর্বে ৩৭নং ওয়ার্ড ছিলো ইউনিয়ন পরিষদ। ইউনিয়নের কোন দায়িত্বেও আমি ছিলাম না। তাহলে কিভাবে আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েই অবৈধ অর্থ-সম্পদের মালিক হয়ে গেলাম!
জাহাঙ্গীর আলম জানান, গত নির্বাচনে আমার সঙ্গে যারা পরাজিত হয়েছেন, যারা বিএনপি-জামায়াতের প্রার্থি ছিলেন, পরাজিত হওয়ার পরের দিন থেকেই তারা উদ্দেশ্য-প্রণোদিতভাবে মিথ্যা ভিত্তিহীন কল্প-কাহিনী সাজাচ্ছেন।
তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে একটি গণমাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে, আমি নাকি বাড্ডা এলাকায় ১শত নয়, ২ শত নয়, ৫ শত নয়, ২ হাজার একর জমি-বিল দখল করেছি! ২ হাজার একরে কত জমি/বিল হয় তা কি অভিযোগকারীরা জানেন? জাহাঙ্গীর আলম এসব মিথ্যা, ভিত্তিহীন তথ্য ছড়ানো ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রচারণা বন্ধ করার আহ্বান জানান।