সোমবার,১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

প্রতারনার নতুন ফাঁদ

মুক্তখবর :
জানুয়ারি ১১, ২০২০
news-image

রফিকুল ইসলাম কচি: সাধারণ মানুষ যত সচেতন হচ্ছে, তেমনি প্রতারকরা প্রতারণায় নতুন নতুন কৌশল আবিষ্কার করছে। গত ২৫/১২/২০১৯ইং তারিখ সকাল অনুমান ৬ ঘটিকার সময় খুরশিদা খাতুন সহকারী শিক্ষিকা ও তার পরিবারসহ ঢাকা সদরঘাট লঞ্চঘাট হতে বোনের বাসা কল্যাণপুর যাওয়ার উদ্দেশ্যে একটি সিএনজি ভাড়া নেয়। সিএনজি নম্বর নারায়নগঞ্জ-থ-১১-০৮৬১। উক্ত সিএনজি যোগে কিছু দূর আসার পর গেন্ডারিয়া থানাধীন দয়াগঞ্জ ট্রাক ষ্ট্যান্ডের বিপরীতে সুইপার কলোনীর সামনে ২৫/১২/২০১৯ ইং তারিখ সকাল অনুমান ০৭.২৫ ঘটিকার সময় পৌঁছালে অজ্ঞাতনামা সিএনজি চালক তাদেরকে সিএনজিতে গ্যাস শেষ হয়ে গেছে মর্মে গ্যাস নেওয়ার জন্য কৌশলে তাদেরকে সিএনজি হতে নামিয়ে সিএনজির ভিতরে থাকা তাদের লাগেজ, ব্যাগসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র চুরি করে নিয়ে চলে যায়। একইভাবে গত ২৭/১২/২০১৯ইং তারিখ সকাল অনুমান ৭ ঘটিকার সময় রোকেয়া বেগম (গৃহিনী) ও তার পরিবারসহ ঢাকা সদরঘাট লঞ্চ ঘাট হতে দক্ষিণ বনশ্রী যাওয়ার উদ্দেশ্যে একটি সিএনজি ভাড়া নেয়। ভাড়াকৃত সিএনজির নম্বর নারায়গঞ্জ-থ-১১-০৮৬১। উক্ত সিএনজিযোগে কিছু দূর আসার পর গেন্ডারিয়া থানাধীন দয়াগঞ্জ মোড়স্থ’ ওয়াল্টন শোরুমের সামনে পাকা রাস্তার উপর ২৭/১২/২০১৯ ইং তারিখ সকাল অনুমান ৭ ঘটিকার সময় পৌঁছালে অজ্ঞাতনামা সিএনজি চালক তাদেরকে বলে সামনে পুলিশ চেকপোষ্ট। চেকপোষ্টে তাদের পুলিশ চেক করবে মর্মে কৌশলে সিএনজি হতে নামিয়ে সিএনজির ভিতরে থাকা তাদের লাগেজ, ব্যাগসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র চুরি করে নিয়ে চলে যায়। এবিষয়ে গেন্ডারিয়া থানায় ২টি নিয়মিত মামলা হয়। গেন্ডারিয়া থানার পেনাল কোড মামলা নং-২৫(১২)২০১৯ ধারা- ৪২০/৩৭৯। গেন্ডারিয়া থানার মামলা নং-২৬(১২)২০১৯ ধারা- ৪২০/৩৭৯। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোহাম্মদ শামীম আল মামুন গেন্ডারিয়া থানা ডিএমপি ঢাকা গত ৩০/১২/২০১৯ইং তারিখ বাদীর বর্ননা অনুযায়ী সিএনজি সহ চালক/মালিক মোঃ ইসমাইল তালুকদার ওরফে বিল্লাল ওরফে ইসমাইল হোসেন আকনকে প্রযুক্তিগত সহায়তা নিয়ে খুব দ্রুত সময়ে, উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশনায় গ্রেফতার করেন। আসামীর স্বীকারোক্তি মোতাবেক সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকা হতে বাদীর সনাক্ত মোতাবেক আলামত উদ্ধার করেন। আসামী বিজ্ঞ আদালতে বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উক্ত আসামীর বিরুদ্ধে আরো দুইটি মামলা রয়েছে যাহা সিদ্ধিরগঞ্জ থানার মামলা নং-২৪(০৬)২০১৯ ধারা-৩৭৯/৪১১ পেনাল কোড এবং মুগদা থানার মামলা নং-০৯(০৪)২০১৮ ধারা- ৪২০/৩৭৯ পেনাল কোড। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাধারণ জনগণকে এধরনের প্রতারনার ফাঁদ হতে সতর্কভাবে পথ চলার অনুরোধ করেন। গেন্ডারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সহ সকলের সার্বিক সহযোগিতায় খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সিএনজি সহ প্রতারক আটক হয়। বাদীপক্ষ তার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানাই।