বুধবার,২৩শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পাবনায় দুই বোনের মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত

মুক্তখবর :
ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২০
news-image

ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ (নিজস্ব প্রতিনিধি): পাবনার ফরিদপুরে আকস্মিক অসুস্থতায় সাথী ও বিথী নামে দুই বোনের মৃত্যুর ঘটনা তদন্তে নেমেছে জাতীয় রোগতত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের (আইইডিসিআর) অনুসন্ধান দল।

গেল রোববার আইইডিসিআর’র মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা স্বাক্ষরিত এক পত্রে পাবনার ফরিদপুরে দুইবোনের মৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করতে চার সদস্যের বিশেষজ্ঞ দলকে নির্দেশ দেন। ওই পত্রে মাঠপর্যায়ের তদন্ত শেষে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলেরও নির্দেশ দেয়া হয়।

তার প্রেক্ষিতে অনুসন্ধান দলের সদস্যরা গতকাল সোমবার দুপুর দুইটায় ফরিদপুর উপজেলার কালিকাপুর গ্রামে মৃত সাথী ও বিথীর বাড়িতে যান। এ সময় পাবনার সিভিল সার্জন ডা. মেহেদী ইকবাল ও ফরিদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. লুলু ওয়াল মারজান উপস্থিত ছিলেন।

তদন্ত দলের সদস্যরা মৃত দুই বোনের বাবা-মাসহ স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন। এর আগে তারা পাবনা জেনারেল হাসপাতালের সহকারী পরিচালক, সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক ও সিভিল সার্জনের সঙ্গে সাক্ষাত করে বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজ খবর নেন।

এদিকে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে গতকাল সোমবার বিকেল তিনটায় পাবনা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের পাবনার সিভিল সার্জন ডা. মেহেদী ইকবাল জানান, যেহেতু একই পরিবারের ছোট দুই বোন পরপর দুইদিনের মারা গেছে, সে কারণে তারা বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে দেখছেন। বিষয়টি ঢাকাস্থ জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটে জানানো হয়েছিল। সেখান থেকে গঠিত একটি উচ্চপর্যায়ের অনুসন্ধান টিম পাবনায় এসে তদন্ত করে দেখছে। ঠিক কি কারণে দুই বোনের মৃত্যু হয়েছে সেটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করছেন তারা। এছাড়াও বিভিন্ন নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় ফিরবেন বিশেষজ্ঞ দল। তাদের পরীক্ষা নীরিক্ষার পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

প্রসঙ্গত, গেল বৃহস্পতিবার বিকেলে স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে বমি করতে শুরু করে দুই বোন সাথী ও বিথী। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার দিনগত ভোররাতে বড় বোন সাথী ও পরদিন শুক্রবার রাতে হাসপাতালে ছোট বোন বিথীর মৃত্যু হয়। এ নিয়ে আতঙ্কে এলাকার অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ে।

মৃত সাথী ও বিথি ফরিদপুর উপজেলার হাদল ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের শহীদুল ইসলাম প্রামানিকের মেয়ে। এদের মধ্যে সাথী খাতুন অষ্টম শ্রেণির ও বিথি চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।