বুধবার,২০শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সরকার দুর্নীতিকে সংরক্ষণ করতে পরিপত্র জারি করেছে: রিজভী

মুক্তখবর :
আগস্ট ৬, ২০২০
news-image

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৬ আগষ্ট ২০২০ (স্টাফ রিপোর্টার): বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘স্বাস্থ্য খাতে এক ভয়ঙ্কর দুর্নীতি বিরাজ করছে। দুর্নীতিতে স্বাস্থ্য খাত ধ্বংস হয়ে গেছে। এর মধ্যে গতকাল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় একটি পরিপত্র জারি করেছে, সরকারের অনুমতি ছাড়া কোনো হাসপাতালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান পরিচালনা করতে পারবে না। এর মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে, সরকার দুর্নীতিকে সংরক্ষণ করতে চায়, প্রোটেকশন দিতে চায়।’ কুড়িগ্রামে নিজ বাসভবন থেকে আজ বৃহস্পতিবার এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন রিজভী।

এ প্রসঙ্গে রিজভী আরো বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান পরিচালনা না করলে রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ ও জেকেজির চেয়ারম্যান ডা. সাবরীনার দুর্নীতি প্রকাশ পেত না। দুর্নীতির সঙ্গে যারা জড়িত, তারা সরকারি দলের লোকজন। তাদের প্রোটেকশন দেওয়ার জন্যই এই পরিপত্র জারি করা হয়েছে। এর ফলে সামনের দিনগুলোতে স্বাস্থ্য খাত আরো ভয়ঙ্কর হবে। মানুষ কোনো সেবাই পাবে না।’

চলমান বন্যা পরিস্থিতি প্রসঙ্গে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘কিছু নদীর পানি কমতে থাকলেও অনেক এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। এরই মধ্যে বন্যায় মানুষের ঘরবাড়ি, গবাদিপশু ভেসে গেছে। ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। এ ক্ষেত্রে সরকার কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। বন্যা মোকাবিলায় নানা ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার কথা থাকলেও, আমি তা দেখিনি। বানভাসি মানুষ খাদ্যের অভাবে মানবেতর জীবনযাপন করছে।’

কুড়িগ্রামে করোনার বিস্তার নিয়ে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘কুড়িগ্রামে করোনা ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করছে, মানুষ মারা যাচ্ছে। যেখানে ঢাকায় কোনো চিকিৎসা নেই, সেখানে কুড়িগ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে চিকিৎসা পাওয়া কল্পনাও করা যায় না। এখানে চিকিৎসা ব্যবস্থা না থাকায় নরকতুল্য অবস্থা বিরাজ করছে।’ বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব আরো বলেন, ‘করোনা মোকাবিলায় সরকারের কোনো প্রতিকারের ব্যবস্থা ছিল না। কার্যত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি, দেশবাসী তা দেখেছে। চিকিৎসা না পেয়ে মানুষ রাস্তায়-অ্যাম্বুলেন্সে মারা গেছে। সরকার মানুষের সেবা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।’