রবিবার,২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

মঠবাড়িয়ায় ট্রিপল মার্ডারের রহস্য উদঘাটন, মূল হোতাসহ গ্রেফতার ২

মুক্তখবর :
আগস্ট ৯, ২০২০
news-image

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার ধানীসাফা গ্রামের চাঞ্চল্যকর অটোচালক আয়নাল হক, তার স্ত্রী খুকুমণি ও তিন বছরের শিশু কন্যা আশফিয়া কে হত্যার আট দিন পর রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ ও পিরোজপুর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) যৌথ অভিযানে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারীসহ দুই জনকে গ্রেফতার করেছেন। শনিবার রাতে মঠবাড়িয়া থানা চত্বরে পিরোজপুরের পুলিশ সুপার মো. হায়াতুল ইসলাম সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান , মঠবাড়িয়া উপজেলার ধানীসাফা গ্রামের অটোচালক মো. আয়নাল হকের ভাড়া বাসায় টাকা ও স্বর্ণ লুটের উদ্দ্যেশে একই গ্রামের তোজাম্বর আলী বিশ্বাস এর ছেলে অলি বিশ্বাস তার তিন সহযোগি নিয়ে গত ৩০ জুলাই রাতে সিদ কেটে আয়নালে ঘরে ঢুকে বাসার মালামাল তছনছ শুরু করে। এসময় গৃহকর্তা অটোচালক আয়নাল চার দুর্বৃত্তকে চিনে ফেলায় তাকে ও তার স্ত্রী খুকুমণিকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে তাদের লাশের হাত বেঁধে আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রাখে। পরে দুর্বৃত্তরা বের হয়ে আসার সময় ওই দম্পতির তিনবছরের শিশু কন্যা আশফিয়া কান্নাকাটি করায় তাকেও শ্বাসরোধে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। পরদিন খবর পেয়ে পুলিশ বসতঘর হতে তিনজনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। এ চাঞ্চল্যকর তিন খুনের ঘটনায় নিহত আয়নাল হক এর শ্বশুর উপজেলার চিত্রা গ্রামের আবুল কালাম সরদার বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামী করে ৩১ জুলাই মঠবাড়িয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ নির্মম হত্যাকান্ডের পর রহস্য উদঘাটনে র‌্যাব, সিআইডি, পিবিআই, ডিবিসহ থানা পুলিশের ৫টি টিম মাঠে সার্বক্ষণিক কাজ শুরু করেন। ঘটনার আট দিনের মাথায় তদন্তে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করে আইনশৃংখলা বাহিনী। শনিবার হত্যাকাণ্ডের মূল হোতা একই গ্রামের তোজাম্বর বিশ্বাসের ছেলে অলি বিশ্বাস (৩০)কে গ্রেফতার করে। এরপর অলির ভাষ্য অনুযায়ী তার অপর সহযোগী একই গ্রামের কাওসার বেপারীর ছেলে রাকিব বেপারী (২২) কেও গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে অলির গ্রামের বাড়িতে তাকে নিয়ে পুলিশ অভিযান চালায়। তার কথিত মতে বাড়ির পুকুর হতে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ২টি লোহার পাইপ, একটি রামদা ও লুণ্ঠিত কিছু অর্থ উদ্ধার করে। পিরোজপুর জেলা পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম খান সাংবাদিকদের বলেন, এ চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে মঠবাড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসান মোস্তফা স্বপনের নেতৃত্বে র‌্যাব, সিআইডি, পিবিআই, ডিবিসহ থানা পুলিশের ৫টি টিম মাঠে সার্বক্ষণিক কাজ করে। হত্যার মূল হোতাসহ দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি দুই সহযোগিকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে মঠবাড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসান মোস্তফা স্বপন, থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আ,জ,ম, মাসুদুজ্জামান মিলু, থানা অফিসার ইন চার্জ (ওসি) তদন্ত আব্দুল হক উপস্থিত ছিলেন। এদিকে আজ রোববার দুপুরে গ্রেফতারকৃত অলি বিশ্বাস ও রাকিব বেপারীকে আদালতে সোর্পদ করেছে থানা পুলিশ। উল্লেখ্য, এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে এর আগে একই গ্রামের আঃ মালেক (৫৫), শামীম গাজী (২৬), রহিম (১৯), মাহাবুব (২০), সাকিল (১৯) ও শাহিন (১৯) কে গ্রেফতার করে আদালতে সোর্পদ করে।