শুক্রবার,১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

গর্ভপাত রোধে করণীয়

মুক্তখবর :
আগস্ট ১০, ২০২০
news-image

ঢাকা, সোমবার, ১০ আগষ্ট ২০২০ (স্বাস্থ্য ডেস্ক): প্রতিটি নারী মা হওয়ার স্বপ্ন দেখেন। সেই ছোট নবজাতক যখন পেটের ভেতর তার অস্তিত্ব জানান দেয়, তখন হবু মায়ের কাছে এর চেয়ে আনন্দের অনুভূতি আর কী হতে পারে। তবে অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভপাতের সমস্যায় ভুগে থাকেন অনেক নারী। অনেকে নীরবে চোখের জল ফেলেন। তবে এ সমস্যারও কিন্তু সমাধান রয়েছে। আমেরিকান সোসাইটি ফর রিপ্রোডাক্টিভ মেডিসিনের আন্তর্জাতিক জার্নাল ‘ফার্টিলিটি অ্যান্ড স্টেরিলিটি’-তে প্রকাশিত সাম্প্রতিক এক গবেষণায় বলা হয়, ২৫ শতাংশ নারী গর্ভপাতের শিকার হন। গর্ভধারণের প্রথম তিন মাসের মধ্যেই এমনটি ঘটে। তাই এ সময় সবচেয়ে বেশি সতর্ক থাকতে হয়। নারীর অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভপাত রোধে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের গাইনি কনসালট্যান্ট ডা. সোনিয়া সিদ্দিকা যুগান্তরে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, গর্ভধারণের প্রথম দিন থেকে প্রতিটি দিনই মা ও অনাগত সন্তানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এ সময় সবচেয়ে বেশি সচেতন থাকতে হবে।

এ সময় যেসব সমস্যা হতে পারে ও অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভপাত রোধে করণীয়-

১. গর্ভধারণের ১ম সপ্তাহ থেকে শুরু করে ১২তম সপ্তাহকে ধরা হয় ফার্স্ট ট্রাইমিস্টার। অধিকাংশ গর্ভপাত প্রথম তিন মাসেই হয়ে থাকে। প্রথম দিকের এই সময়টা সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ, তাই সতর্ক থাকুন।
২. বমি বমি ভাব, বমি হওয়া, কোষ্ঠকাঠিন্য ও প্রচণ্ড গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হতে পারে।
৩. গর্ভবস্থার প্রথম দিকেই গর্ভকালীন ডায়াবেটিস হতে পারে। এ ছাড়া মাথা ঘোরা ও পেটে প্রচণ্ড ব্যথাও হতে পারে।
৪. সিঁড়ি বেয়ে ওঠা, ভারী জিনিস বহন ও ঠাণ্ডা লাগে এমন কাজ করা যাবে না।
৫. কাপড় ধোয়া, ঘর ঝাড়ু দেয়া বা মোছার মতো কাজগুলো করা যাবে না।
৬. গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাস কোথাও ভ্রমণ করা ঠিক নয়। এ ছাড়া রাস্তা খারাপ দিয়ে গাড়িতে না চরে হেঁটে যাওয়া নিরাপদ।
৭. গর্ভধারণ নিশ্চিত হলে প্রথম থেকে পুরো সময়টা একজন চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলুন।