সোমবার,২৩শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

রিফাত হত্যা: অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির রায় আজ

মুক্তখবর :
অক্টোবর ২৭, ২০২০
news-image

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০ (নিজস্ব প্রতিনিধি): আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামীর রায় ২৭ আজ। বরগুনা শিশু আদালতের বিচারক হাফিজুর রহমান ১৪ অক্টোবর এ মামলাটির রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন। চলতি বছর ৮ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনার শিশু আদালত। ৭৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ ও উভয় পক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের পর মোট ৬৩ কার্যদিবসে বিচারিক কার্যক্রম শেষে গত ১৪ অক্টোবর বরগুনা শিশু আদালত এ মামমলার রায়ের দিন ধার্য করেন। মামলা ১৪ আসামির মধ্যে ৭ আসামির ১৬৪ ধারায় আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

নিহত রিফাতের পরিবাররে প্রত্যাশা আদালত এ মামলাটিতেও দৃষ্টান্তমূলক রায় দেবেন-

রিফাত হত্যা মামলায় অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলো- মো. রাশিদুল হাসান রিশান ওরফে রিশান ফরাজী (১৭), মো. রাকিবুল হাসান রিফাত হাওলাদার (১৫), মো. আবু আবদুল্লাহ্ ওরফে রায়হান (১৬), মো. ওলিউল্লাহ্ ওরফে অলি (১৬), জয় চন্দ্র সরকার ওরফে চন্দন (১৭), মো. নাইম (১৭), মো. তানভীর হোসেন (১৭), মো. নাজমুল হাসান (১৪), মো. রাকিবুল হাসান নিয়ামত (১৫), মো. সাইয়েদ মারুফ বিল্লাহ ওরফে মহিবুল্লাহ (১৭), মারুফ মল্লিক (১৭), প্রিন্স মোল্লা (১৫), রাতুল শিকদার জয় (১৬) ও মো. আরিয়ান হোসেন শ্রাবণ (১৬)। অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিদের মোট ৮ জন জামিনে ও ৬ জন কিশোর সংশোধন কেন্দ্রে রয়েছেন। রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ১৪ অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণে ৭৪ জন সাক্ষী ও প্রমাণাদি আদালতে উপস্থাপন করা হয়েছে। এ মামলায় অভিযোগ প্রমাণে সমর্থ হয়েছে রাষ্ট্রপক্ষে। গত বছরের ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে কিশোর গ্যাং বন্ড বাহিনী কুপিয়ে হত্যা করে রিফাত শরীফকে। ওই হত্যাকাণ্ড সারাদেশকে নাড়িয়ে দিয়েছিল। কিশোর গ্যাং বন্ড বাহিনী প্রকাশ্যে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই দিন বিকালেই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। ৩০ সেপ্টেম্বর মিন্নিসহ ৬ প্রাপ্তবয়স্ক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। রিফাত হত্যাকাণ্ডের দুই মাস ছয় দিন পর গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর বিকালে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্তবয়স্ক এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক দুই ভাগে বিভক্ত করে দুটি তদন্ত প্রতিবেদন (চার্জশিট) দাখিল করেন পুলিশ। এদের মধ্যে ১০ জন প্রাপ্তবয়স্ক আসামি এবং ১৪ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক। একইসঙ্গে রিফাত হত্যা মামলার এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়।