শুক্রবার,২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নীলফামারীতে সন্ত্রাসী জুয়েলকে গ্রেফতারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

মুক্তখবর :
নভেম্বর ২৩, ২০২০
news-image

মোঃ নাঈম শাহ্, নীলফামারী প্রতিনিধিঃ নীলফামারী সদর উপজেলার বাবরীঝাড়ের সন্ত্রাসী চাঁদাবাজ বাহিনীর প্রধান জুয়েল ও তার সহযোগীদের গ্রেফতারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে সন্ত্রাসী হামলার স্বীকার মোঃ মশিয়ার রহমান। সোমবার (২৩ নভেম্বর) বেলা ১২টায় আরাজী কুচিয়ারমোড় বাবরীঝাড়ের তার নিজ বাড়ীতে সংবাদ সম্মেলন করে মশিয়ার ও তার পরিবার। সংবাদ সম্মেলনে মশিয়ার বলেন, গত ১৪ নভেম্বর সন্ধায় সৈয়দপুর ক্যান্টনম্যান্টের কাছে আমার বড় ভাইয়ের বাড়ী থেকে ভাইয়ের জমি বন্ধকের দুই লক্ষ টাকা নিয়ে আমাদের বাড়ী বাবরীঝাড়ে আসতেছিলাম। পথিমধ্যে বাবরীঝাড় হাইস্কুলের দেওয়ালের পার্শ্বে পৌছামাত্রই পূর্ব পরিকল্পিতভাবে সন্ত্রাসী চাঁদাবাজ বাহিনীর প্রধান জুয়েল ও তার সহযোগীরা আমাকে এলোপাথারি মারতে শুরু করে এবং আমার কাছে থাকা জমি বন্ধকের দুইলক্ষ টাকা ও আমার স্যামস্যাং মোবাইল বের করে নেয়। তারা আমাকে চেন দিয়ে মারতে থাকে আমি ব্যাথায় চিৎকার করলে তারা আমার গলা টিপে ধরে এমত অবস্থায় স্থানীয় লোকজনেরা আমাকে তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করায়। তিনি আরো বলেন, তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করি (মামলা নং ২৩ তারিখ ২০/১১/২০২০)। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করায় তারা আমাদের পরিবার মামলা তুলে নেওয়ার জন্য মৃত্যুর হুমকি দিচ্ছে। তাই আমি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জুয়েল ও তার সহযোগীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনে মশিয়ার রহমান এর পিতা হাজি মোঃ সোহরাব হোসেন বলেন, স্থানীয়রা জুয়েল বাহিনীর হাত থেকে আমার ছেলেকে উদ্ধার করে নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করায় সেখানকার ডাক্তার আমার ছেলে অবস্থা খারাপ দেখে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে দেয়। জুয়েল ও তার সহযোগীরা আমার ছেলেকে এমন গুরুতর আহত করে যে রংপুরে আমার ছেলে দুই দিন যাবৎ অজ্ঞান ছিল। এমনকি এখন তারা আমাদের থানা থেকে মামলা উঠিয়ে নেওয়ার জন্য ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এমনকি মাঝরাতে আমাদের বাড়ীতে ঢিল ছুড়তে থাকে আর বলে মামলা তুলে না নিলে জানে বাঁচবি না। আমাদের পরিবার এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে আমি সরকারের কাছে আমার পরিবারের নিরাপত্তা চাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনে মশিয়ার এর ভাই, স্থানীয়রা ও বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।