বুধবার,১৪ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

১টি ব্রীজের অভাবে দুর্ভোগে ৭টি ইউনিয়নের মানুষ

মুক্তখবর :
মার্চ ১, ২০২১
news-image

মোঃ মসলেম উদ্দিন, নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী চরাঞ্চলের অসুস্থ্য মানুষকে এভাবে চৌকিতে করে নিয়ে যায় উন্নত চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে। উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৬ কিলোমিটার দুরে দুধকুমর নদী। নদীটির দৈর্ঘ্য প্রায় ১৬কিলোমিটার। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ থেকে আগত রায়ডাক বা সংকোশ নদীটি বাংলাদেশের উত্তরের সিমান্ত পাটেশ্বরীতে দুধমুকর নাম ধারন করে। উপজেলা পরিসংখান অফিস সুত্রমতে নদীর পূর্বপারে কেদার, বল্লভেরখাষ,নারায়নপুর, কচাকাটা সহ পার্শ্ববতী বেরুবাড়ী বামডাঙ্গা নুনখাওয়া ও কালিগঞ্জ ইউনিয়নের প্রায় ১লক্ষ ৩৬ হাজার মানুষের বসবাস। নাগেশ্বরী উপজেলার নদীর পূর্ব পারে কচাকাটা নামে আরেকটি থানা রয়েছে। নদীর পূর্বপারে রয়েছে ৩টি কলেজ, একটি ফাযিল বিএ মাদরাসা, ১০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১০টি দাখিল মাদরাসা ও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ৫৯টি। এসব লোকে জেলা সদর সহ উপজেলা সদরে যাতায়াতের সরাসরি কোন সড়ক পথ নেই। চলাচলের একমাত্র মাধ্যম নদী ও নৌকা। শিক্ষা চিকিৎসা সহ সকল সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয় শ্রেনী পেশার মানুষ। স্বাধীনতার পর থেকেই এই অঞ্চলের মানুষ একটি ব্রীজের অভাব অনুভব করে আসছে। অসুস্থ্য রোগিকে চৌকিতে করে নিয়ে হাসপাতালে পৌছার আগেই মৃত্যু ঘটেছে অনেকের। চরাঞ্চলের লক্ষাধিক মানুষের দাবি দুধকুমর নদীর উপরে একটি ব্রীজ নির্মাণ হলে রক্ষা পেত অসংখ্য লোকের জীবন। বলদে যেত মানুষের জীবন মান, ঘুরে দাড়াত অর্থনীতির চাকা। চর বেরুবাড়ী ইউনিয়নের শফিকুল ইসলাম তার অসুস্থ্য স্ত্রীকে চিকিৎসার জন্য চৌকিতে নিয়ে যাওয়ার সময় বলেন, একটি ব্রীজের অভাবে আমাদের এত কষ্টকরে হাসপাতালে রোগিকে নিতে হয়। বামানডাঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন বলেন, একটি ব্রীজ হলে এলাকার মানুষের অনেক উন্নতি হত। এ ব্যাপারে স্থানীয় জাতীয় সাংসদ আছলাম হোসেন সওদাগর বলেন আমার প্রচেষ্টায় দুধকুমর নদীর উপরে কালিগঞ্জ ইউনিয়নের উপর দিয়ে একটি ব্রীজের অনুমোদ হয়েছে। অতি শিগ্রই ব্রীজের নির্মাণ কাজ শুরু হবে।