শনিবার,১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কলাপাড়ায় সার সরবরাহে সঙ্কট, দিশেহারা কৃষকসহ ডিলাররা

মুক্তখবর :
সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১
news-image

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় চলমান আমন মৌসুমে সার সরবরাহে চরম সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ফলে সরবরাহ প্রতিবন্ধকতায় দিশেহারা হয়ে পরেছেন বিসিআইসি ডিলারসহ ভুক্তভোগী চাষীরা। গত ২৩ আগষ্ট বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাট্রিজ কর্পোরেশন বিসিআইসি ভবন থেকে স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে পটুয়াখালীর লাউকাঠিতে একমাত্র সার গুদাম স্থানান্তরের সিন্ধান্ত গ্রহন করে। ফলে গত ২৪ অক্টবর সর্বশেষ সার সরবরাহ শেষে এ গুদামের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। আর এতেই বিপাকে পরেছে উপজেলার সার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠনাসহ প্রান্তিক কৃষকরা। সরেজমিনে জানা যায়, বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার অ্যাসেসিয়োশন বাফার পটুয়াখালী গুদাম থেকে সার সরবরাহ বন্ধের পর বরিশাল কেডিসি সার গুদাম থেকে এ উপজেলায় সরবরাহে চরম প্রতিবন্ধকতা দেখা দিয়েছে। ভুক্তভোগী ডিলারদের অভিযোগ, দিনের পর দিন ঘাটে ট্রাক কিংবা ট্রলার রেখেও সার পাচ্ছেন না তারা। ফলে প্রতিদিন লোকশান গুনতে হচ্ছে হাজার হাজার টাকা। চলতি সেপ্টম্বর মাসে কলাপাড়া উপজেলায় সরকারীভাবে ১২’শ ২৪ মেট্রিক টন সার পাওয়ার কথা থাকলেও বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ডিলাররা সার বরাদ্দ পেয়েছেন মাত্র ৪০ টন। এছাড়া উপজেলা পর্যায়ে প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত সার পৌছাতে বস্তা প্রতি গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া ৩৫ টাকা। এমনকি গত কয়েকমাস মাস ধরে বরাদ্দ পেতে টাকা জমা দেয়ার পরেও সঠিক সময়ে সার পাচ্ছেন না বলেও অভিযোগ করেন অনেক বিসিআইসি ডিলাররা। লতাচাপলী ইউপির আছালত খাঁ গ্রামের কৃষক মাসুম বিল্লাহ জানান, তিনি প্রায় নয় একর জমিতে আমনের চাষ করেছেন। কিন্তু গত একমাস ধরে তিনি সার কিনতে পারছেন না। ফলে তিনি দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। লতাচাপলী ইউপির বিসিআইসি ডিলার রুহুল আমিন জানান, গত ২ সেপ্টেম্বর টাকা জমা দিলেও বরিশাল থেকে আমরা এখনও সার পাইনি। কারণ হিসেবে তিনি জানান পটুয়াখালী থেকে সার গোডাউন বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলেই আমরা এমন বিপদে পরেছি। বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার অ্যাসেসিয়োশন কলাপাড়া উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও পৌর শহরের বিসিআইসি ডিলার খাঁন ট্রেডার্সের সত্তাধিকারী মো. জাকির হোসেন জানান, পটুয়াখালীর গুদাম ঘর বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমাদের সার সরবরাহ পেতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এমনকি মাসের পর মাস বরিশাল ঘাটে এসে থাকতে হচ্ছে আমাদের। প্রতিদিন দুই হাজার টাকারও বেশি লোকশান দিয়েও সরবরাহ প্রতিবন্ধকতায় আমরা সার পাচ্ছি না। ফলে প্রান্তিক চাষিসহ সাব ডিলারদের মাঝেও এর প্রভাব পরেছে। পটুয়াখালী শাখার বাফার ব্যবস্থাপক (বানিজ্যিক) মশিউর ইসলাম জানান, লাউকাঠি গুদাম ঘরটির ছাদ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় গুদাম ক্লোজ করা হয়েছে। তবে উর্ধতন মহলে সিন্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে নতুন করে গুদাম ঘর স্থাপন করা হবে। সেই লক্ষে জমি অধিগ্রহনের প্রক্রিয়া চলমান আছে। কলাপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ আর এম সাইফুল্লাহ জানান, সেপ্টেম্বর মাসে কলাপাড়ায় ১২’শ ২৪ মেট্রিকটন সার পাওয়ার কথা থকালেও আমরা এখনও তা পাইনি। এ বিষয়ে আমরা উর্ধতন কতৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি। দ্রুত সার সরবরাহে তাদের কাছে অনুরোধ জানানো হয়েছে। বরিশাল বাফার গুদাম ইনচার্জ আবদুর রহিম খন্দকার জানান, পটুয়াখালী গুদাম বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বরিশাল থেকে সার সরবরাহ করা হচ্ছে । বৈরি আবহাওয়ায় লেবার ম্যানেজে আমাদের একটু প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছিলো। তার পরেও সবকিছু ঠিক থাকলে আমরা প্রতিদিন ৫’শ মেট্রিকটন সার সরবরাহ করছি। আশা করছি কলাপাড়া উপজেলায় প্রতি মাসের সার পৌছে দিতে পারবো। আমরা সেই লক্ষে আপ্রান চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।